• ঢাকা
  • সোমবার, ১৬ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং | ১লা আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১৫ই মুহাররম, ১৪৪১ হিজরী

রাত ২:০৯

৫ম বারের শ্রেষ্ঠ ওসি দুর্গাপুর থানার মিজান


দুর্গাপুর(নেত্রকোনা)প্রতিনিধি: নেত্রকোনার দুর্গাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মিজানুর রহমান ৫ম বারের মত নেত্রকোণা জেলার শ্রেষ্ঠ ওসি নির্বাচিত হলেন। শনিবার দুপুরে জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে মাসিক অপরাধ/মূল্যায়ণ মিটিয়ে জেলার শ্রেষ্ট ওসির পুরষ্কার ও সনদ তুলে দেন পুলিশ সুপার জয়দেব চৌধুরী। এসময় জেলা পুলিশের উর্দ্ধতন কর্মকর্তা,জেলার সকল ওসি,অন্যান্য পুলিশ কর্মকর্তা প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

২০১৮সালের আগষ্ট মাসে দুর্গাপুর থানায় যোগদান করেন ওসি মিজানুর রহমান। তারপর থেকেই মাদকের বিরুদ্ধে ঘোষণা শুরু করেণ জিরো টলারেন্স। মাদক ব্যবসায়ী ও সেবীদের বিরুদ্ধে জিহাদ ঘোষণা করেন এই মানবিক পুলিশ কমকর্তা। তার নিরলস পরিশ্রম,আন্তরিকতা,সাহসীকতা,সৌহার্দ্য পূর্ণ আচরণে দুর্গাপুর হয়েছে শান্তির জনপদ। দুর্গাপুর থানা তৈরী হয়েছে সেবা বঞ্চিতদের একটি নিরন্তর আশ্রয়স্থল। নিঃসংকোচে যেকেউ যেকোন অপরাধীর ব্যাপারে অভিযোগ করে তার প্রতিকার পায়নি এমন সংখ্যা খুঁজে পাওয়া কঠিন হবে। আর এই পরিশ্রম আর মেধার অভূতপূর্ব স্বাক্ষরে একের পর এক জেলার শ্রেষ্ট ওসির মুকুট মাথায় তুলে নিচ্ছেন দুর্গাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মিজানুর রহমান।

তিনি জেলায় পাঁচ বার এবং ময়মনসিংহ বিভাগে দুই বার শ্রেষ্ঠ ওসি নির্বাচিত হন এই জনবান্ধব পুলিশ কমকর্তা। তার এই পুরস্কারে ভূষিত হওয়ায় খবরে উপজেলার সর্বস্থরের মানুষের মাঝে আনন্দের বন্যা বিরাজ করছে। স্যারের এই খ্যাতির ভূয়সী প্রশংশা করে দুর্গাপুর থানার এসআই আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, অপরাধ নির্মূলে অপরাধীর মুল শেখর উপড়ে ফেলার জন্য তিনি আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।তিনি দুর্গাপুর থানায় যোগদানের পর থেকেই আইন-শৃংঙ্খলার অনেক উন্নতি হয়েছে।

দুর্গাপুর থানায় সেবা নিতে আসা অসংখ্য উপকারভোগী ওসির শতায়ু কামনা করে প্রতিবেদককে বলেন, থানাতে এর আগেও কয়েকবার গেলাম কিন্তু এই রকম সুন্দর ব্যবহার আর কোন ওসি’র স্যারের নিকট পাইনি। সেবাও পাইলাম,শান্তিও পাইলাম। আল্লাহ ওসি স্যারকে আমার মাথায় চুল যত ততদিন বাঁচাইয়া রাইকো।

পঞ্চমবারের মতো জেলার শ্রেষ্ট ওসি নির্বাচিত হওয়ার প্রতিক্রিয়ায় ওসি মোঃ মিজানুর রহমান বলেন,আমি আইনের একজন সেবক। আইনের প্রতি সবার শ্রদ্ধা থাকার পরও অপরাধের সাথে নানানভাবে জড়িয়ে পড়ছে অনেকে। সুন্দর পথই হলো মুক্তি।আর মুক্তি আরেক নাম জেলহাজত। আমি সবসময়ই চেস্টা করি অপরাধের সাথে জড়িতদের আলাদা পরিবেশে বেড়ে ওঠার পরিবেশ তৈরী করা। আমি আমার সবটুকু দিয়ে আপনাদের পাশে থাকতে চাই। আপনারা ইতিমধ্যে যে ধরনের সহযোগিতা করেছেন আমি অত্যন্ত কৃতজ্ঞ।

আরো ভালভাবে এ উপজেলাকে অপরাধ মুক্ত করতে আপনাদের একান্ত সহযোগিতা দৃঢ়ভাবে কামনা করছি।