• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং | ৫ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২০শে মুহাররম, ১৪৪১ হিজরী

সন্ধ্যা ৬:১২

সড়কে প্রাণ গেলে দুর্ঘটনা নয়, এটা খুন: তথ্যমন্ত্রী


নতুন কাগজ ডেস্ক: অসচেতনভাবে গাড়ি চালানোর কারণে মানুষের মৃত্যু ও পঙ্গুত্ববরণ দুর্ঘটনা নয়। এসবই খুনের ঘটনা। সুতরাং এগুলোর লাগাম টেনে ধরতেই হবে। কিছু দানবরূপী বাসচালক আছে, যাদের রুখতেই হবে বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।
বুধবার (১১ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর শ্যামলীতে ট্রমা সেন্টারে বাসচাপায় গুরুতর আহত কিশোর আলভীকে দেখার পর সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপের সময় তিনি এসব কথা বলেন।
বৃহস্পতিবার (৫ সেপ্টেম্বর) ভিক্টর পরিবহনের একটি বাসের চাপায় উত্তরায় সংগীতশিল্পী পারভেজ রব নিহত হন। এ ঘটনার পর শনিবার (৮ সেপ্টেম্বর) ওই বাসেরই চাপায় পারভেজ রবের ছেলে আলভী গুরুতর আহত হন। এ সময় প্রাণ হারান তার বন্ধু মেহেদী।
ড. হাছান মাহমুদ বলেন, প্রথমত শিল্পী পারভেজ রবকে যেভাবে চাপা দেওয়া হয়েছে, এরপর তার ছেলে একই কোম্পানির গাড়িতে যেভাবে দুর্ঘটনার শিকার হয়েছেন, দুটিই দুর্ঘটনা কিনা, বিশেষ করে পরবর্তী ঘটনাটি তদন্তের দাবি রাখে। আমি মনে করি ভুয়া লাইসেন্স বা রোড পারমিট ছাড়া গাড়ি চালানোর ক্ষেত্রে দায়ী সবার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন।
তিনি বলেন, যাদের এভাবে বেপরোয়া গাড়ি চালানোর কারণে মানুষ প্রাণ ঝরে পড়ছে, সেই দানবদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে।’ তিনি বলেন, ‘বেশিরভাগ ড্রাইভারই ভালোভাবে গাড়ি চালানোর চেষ্টা করেন, ইচ্ছাকৃতভাবে দুর্ঘটনা ঘটান না। কিন্তু কিছু চালক বেপরোয়া গাড়ি চালান, একে অন্যের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় নামেন। অনেক ক্ষেত্রে ইচ্ছাকৃতভাবে চাপা দেন। এরা দুষ্কৃতকারী, দুর্বৃত্ত। তাই এদের অবশ্যই নিয়ন্ত্রণে আনতে হবে।
তথ্যমন্ত্রীর সাথে উপস্থিত ছিলেন ট্রমা সেন্টারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী অধ্যাপক ডা. আ ফ ম রুহুল হক, বিশিষ্ট সংগীতশিল্পী রফিকুল আলম, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক অরুণ সরকার রানা প্রমুখ। বিনা খরচে আলভীর চিকিৎসার জন্য অধ্যাপক ডা. আ ফ ম রুহুল হককে তথ্যমন্ত্রী অনুরোধ জানালে তিনি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন বলে জানান।

নতুন কাগজ/আরকে