• ঢাকা
  • সোমবার, ২১শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং | ৬ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২১শে সফর, ১৪৪১ হিজরী

সকাল ১০:৩৮

‘স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী আসলেও প্রিন্স ও বাবুকে চাঁদা দিতে হবে’


নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজধানীর উত্তরায় রাজউকের প্লট দখল করে অবৈধভাবে নির্মান করা হয়েছে ২০টি দোকান। তরিকুল ইসলাম প্রিন্স এবং বাবু ওরফে গুজা বাবু নিজেদের ক্ষমতাসীন দলের নেতা পরিচয় দিয়ে মাসে দোকান প্রতি ২০-৩০ হাজার টাকা চাঁদা আদায় করছেন। এ ছাড়াও অফেরতযোগ্য জামানত স্বরূপ দোকান প্রতি লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নেন প্রিন্স ও বাবু। তাছাড়া সময় সময় চাহিদা মতো টাকা না দিলে দোকান দখল করে অন্যত্রে ভাড়া দেন। কেউ প্রতিবাদ করলে থানা পুলিশের হয়রানিসহ উত্তরা ছাড়ার হুমকিও দেন।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উত্তরা কিছু প্রভাবশালী নেতার আস্থাভাজন ও বিশ্বস্ত কর্মী হচ্ছেন প্রিন্স ও গুজা বাবু। উত্তরা পশ্চিম থানা আওয়ামী লীগের স্থগিত কমিটির স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন তরিকুল ইসলাম প্রিন্স এবং পদ-পদবী না থাকলেও নিজেকে আওয়ামী লীগ সদস্য বলে দাবী করেন বাবু।
সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, উত্তরা পশ্চিম থানাধীন ১১নং সেক্টরের কাঁচাবাজার সংলগ্ন প্লট দখল করে অবৈধভাবে নির্ণান করা হয়েছে ২০টি দোকান। রাজউকের কাছ থেকে জমি লীজ নিয়েছেন বলে দাবী করে অফেরতযোগ্য জামানত স্বরূপ দোকান প্রতি লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নেন প্রিন্স ও বাবু।
প্রিন্স ও বাবুর যন্ত্রনায় অতিষ্ঠ একাধিক দোকান মালিক বলেন, ‘বাবু আমাদেরকে হুমকি দিয়ে বলে তার তরিকায় আসতে হবে, না আসলে দোকান ছাড়তে হবে। স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী আসলেও টাকা দেওয়া ঠেকাতে পারবে না।’
প্রিন্স ও বাবু সম্পর্কে উত্তরা পশ্চিম থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাড. মনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ‘চাঁদাবাজরা কোন দলের নয়, এরা দলের নাম ভাঙ্গিয়ে চাঁদাবাজি করে দলের সুনাম নষ্ট করছেন।’
এ ব্যপারে উত্তরা পশ্চিম থানার অফিসার ইনচার্জ তপন কুমার বলেন, ‘প্রিন্স ও গুজা বাবু সম্পর্কে আমার জানা নেই। এ রকম কোনো অভিযোগও নেই। তারপরও খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’
এদিকে প্রিন্স ও বাবুর সাথে মুঠোফোনে কথা বললে তারা বিষয়টি অস্বীকার করেন।