• ঢাকা
  • সোমবার, ২১শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং | ৬ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২১শে সফর, ১৪৪১ হিজরী

সকাল ১১:৪৮

সুনামগঞ্জে নৌকাডুবিতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৯


নতুন কাগজ ডেস্ক: সুনামগঞ্জ জেলার দিরাইয়ের কালিকুটা হাওরে নৌকাডুবিতে আরো চারজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

বুধবার (২৫ সেপ্টেম্বর) সকালে উদ্ধার হওয়া এই চার লাশ নিয়ে এ ঘটনায় মোট নয়জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত আরো একজন নিখোঁজ রয়েছেন বলে স্থানীয় রফিনগর ইউপি চেয়ারম্যান রেজুয়ান হোসেন খান জানিয়েছেন। নৌকাডুবিতে নিহতরা হলেন, উপজেলার নোয়ারচর গ্রামের আবজাল মিয়ার স্ত্রী আজিরুন (৩০), ছেলে আসাদ (৫), মাছিমপুর গ্রামের আরজ আলীর স্ত্রী রুহিতুননেছা (৩৫), একই গ্রামের জমশেদ আলীর মেয়ে শান্তা (৩), পরুয়ার নজিব উল্লার স্ত্রী করিমা (৭০), মাছিমপুরের বাবুল মিয়ার ছেলে শামীম মিয়া (২), বদরুল মিয়ার ছেলে আবির মিয়া(৩), পেরুয়া গ্রামের ফিরোজ মিয়ার ছেলে শহীদুল (৪), নোয়ারচর গ্রামের আনজল মিয়ার ছেলে সোহান মিয়া।বুধবার (২৫ সেপ্টেম্বর) ভোরে আরও চারটি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। দিরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কেএম নজরুল ইসলাম এসব তথ্য জানিয়েছেন।মঙ্গলবার (২৪ সেপ্টেম্বর) রাত সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলার কালিয়াকোটা হাওরের করচা বিলে নৌকাডুবির পরপরই চার শিশুর লাশ উদ্ধার করা হয়। ইউপি চেয়ারম্যান রেজুয়ান হোসেন খান জানান, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উপজেলার রফিনগর ইউনিয়নের মাছিমপুর গ্রাম থেকে চরনারচর ইউনিয়নের পেরুয়া যাওয়ার পথে ৩১ জন যাত্রীসহ একটি ইঞ্জিন চালিত নৌকা কালিয়াকুটা হাওরের ঝড়ের কবলে পড়ে ডুবে যায়। এসময় সাত যাত্রী সাঁতার কেটে পাড়ে ওঠেন। এলাকাবাসী সকালে দুই শিশু ও দুই নারীর লাশ উদ্ধার করেন। এছাড়া রাতে আরোও পাঁচজনের লাশ উদ্ধার করা হয়।
দিরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কে এম নজরুল ইসলাম জানান, এ নিয়ে পুলিশ নয়জনের লাশ উদ্ধার করেছে। এখনো একজন নিখোঁজ রয়েছেন। নিখোঁজের লাশ উদ্ধার করতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। পুলিশ ও নিহতের স্বজনরা জানায়, পেরুয়া গ্রামের ফিরোজ আলীর ছেলের বিয়েতে যোগ দিতে তার ভগ্নিপতি আমিনুল ইসলামসহ ৩১ জন সন্ধ্যায় মাছিমপুর গ্রাম থেকে খোলা ট্রলারে পেরুয়া গ্রামের উদ্দেশে রওনা দেন। রাত সাড়ে আটটার পর যাত্রী বোঝাই ইঞ্জিনচালিত নৌকাটি প্রচণ্ড বাতাস ও ঢেউয়ের কবলে পড়ে ডুবে যায়। এ সময় হাওরের মধ্যে পুঁতে রাখা বাঁশ-কাঠা আঁকড়ে ধরে থাকেন ২১ জন। পরে আশপাশের গ্রামের লোকজন নৌকা নিয়ে তাদের উদ্ধার করেন। এ ঘটনায় চার শিশুসহ আট জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এখনও নিখোঁজ রয়েছেন এক জন।
দিরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিশ্বজিৎ দেব বলেন, সিলেট ও সুনামগঞ্জের ডুবুরি দলের সদস্যরা এলাকাবাসীর সহযোগিতায় হাওরে নিখোঁজদের উদ্ধারে তৎপরতা চালাচ্ছেন।

নতুন কাগজ/আরকে