• ঢাকা
  • বুধবার, ২৩শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং | ৮ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২৩শে সফর, ১৪৪১ হিজরী

সন্ধ্যা ৬:২৮

সিরাজগঞ্জে একই রাতে ২ বাল্যবিয়ে বন্ধ করলেন এসিল্যান্ড


সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধিঃ সিরাজগঞ্জ সদরে একই রাতে দুই স্কুল ছাত্রীকে বাল্যবিবাহ থেকে রক্ষা করেছেন সদরের সহকারী কমিশনার ভূমি,ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ আনিসুর রহমান। গতকাল শুক্রবার রাতে সদরের বাগবাটি ইউনিয়নের পিপুলবাড়ীয়া গ্রামে নবম শ্রেণীর ছাত্রী মোছাঃ মিম খাতুন (১৫) এবং নবম শ্রেণীর ছাত্রী মোছাঃ তাসুমা খাতুন পাখি (১৪) বাল্যবিবাহ বন্ধ করা হয়।

আদালত সূত্রে জানা যায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সংগীয় ফোর্স নিয়ে কনের বাড়ীতে উপস্থিত হন ভ্রাম্যমাণ আদালত। তখন কনের বাড়ীতে কনে পিপুলবাড়ীয়া গ্রামের ফরিদুল ইসলামের মেয়ে মিম খাতুন (১৫) এর সাথে বর কাজীপুর উপজেলার কুনকুনিয়া গ্রামের আব্দুল কাদের এর পুত্র আবু বক্কার (২০) এর বিয়ের আয়োজন চলছিল। কনে স্থানীয় বালিকা বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর ছাত্রী। বর ও কনে উভয়ই অপ্রাপ্তবয়স্ক। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উপস্থিতি টের পেয়ে কাজী পালিয়ে যায়। ভ্রাম্যমাণ আদালত বাল্যবিবাহ বন্ধ করে দিয়ে কনের বাবা ও বরের বাবার কাছ থেকে বর ও কনে প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দিবে না বলে মুচলেকা নেন।

এরপর বহুলী ইউনিয়নের হরিনাহাটা গ্রামে বাল্যবিবাহ বন্ধে অভিযান চালান ভ্রাম্যমাণ আদালত। তখন কনের বাড়ীতে কনে হরিনাহাটা গ্রামের হাবিবুর রহমানের কন্যা তাসুমা খাতুন পাখি (১৪) এর সাথে বর একই উপজেলার চাঁদপাল গ্রামের মৃত ছবের আলী এর পুত্র ফারুখ শেখ (২২) এর বিয়ের আয়োজন চলছিল। কনে স্থানীয় দাখিল মাদ্রাসার নবম শ্রেণীর ছাত্রী। ভ্রাম্যমাণ আদালত বাল্যবিবাহ বন্ধ করে কনের বাবা হাবিবুর রহমানকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন। পরে কনের বাবার কাছ থেকে কনে প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত বিবাহ দিবেন না বলে মুচলেকা নেয়া হয়। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন পেশকার আঃ সাত্তার ও আনসার ব্যাটালিয়নের সদস্যবৃন্দ।