• ঢাকা
  • শনিবার, ১৯শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং | ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১৯শে সফর, ১৪৪১ হিজরী

দুপুর ১:৫৩

সাবেক মন্ত্রিসভার সদস্যদের বাসা ছাড়ার নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট


নিজস্ব প্রতিবেদকঃ মন্ত্রিসভার সাবেক সদস্য ও সচিবরা অবস্থান করে থাকা সরকারি বাসা বর্তমান মন্ত্রীদেরকে ছেড়ে দেয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট আবেদন করা হয়েছে। রিটে নতুন করে মন্ত্রিসভায় যুক্ত হওয়াদের মধ্যে বরাদ্দপ্রাপ্তদের সরকারি বাসা বুঝিয়ে দিতেও নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে।

আজ হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় ব্যারিস্টার হুমায়ুন কবীর পল্লবসহ পাঁচ আইনজীবী এই রিট করেন। বিষয়টি নতুন কাগজকে নিশ্চিত করেছেন আইনজীবী নিজে।

রিটের বিবাদীরা হলেন জাতীয় সংসদের স্পিকার, অর্থ মন্ত্রণালয়ের সচিব, মন্ত্রিপরিষদ সচিব, গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব, আইন মন্ত্রণালয়ের সচিব, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মূখ্য সচিব ও সরকারি আবাসন পরিদফতরের পরিচালক।

এর আগে গতকাল সোমবার ডাক ও রেজিস্ট্রিযোগে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার হুমায়ন কবির পল্লবসহ পাঁচ আইনজীবী সংশ্লিষ্টদের প্রতি নোটিশ পাঠিয়েছিলেন। নোটিশে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বলা হয়েছিল।

নোটিশ অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় হাইকোর্টে এই বিষয়ে আইনি প্রতিকার চেয়ে রিট করা হয়েছে বলে জানান ব্যারিস্টার পল্লব।

তিনি বলেন, ‘মন্ত্রিসভার সদস্যরা তাদের জন্য বরাদ্দ দেয়া বাসায় উঠতে না পারায় দেশের জনগণের এবং রাষ্ট্রীয় কাজের ক্ষতি হচ্ছে। মন্ত্রিসভার সাবেক সদস্যদের দখলে সরকারি বাসা-এমন সংবাদ গণমাধ্যমে প্রকাশ পেয়েছে। ওই সংবাদের পরিপ্রেক্ষিতে মন্ত্রিসভার সব সদস্যকে দ্রুত সরকারি বাসা বুঝিয়ে দিতে প্রথমে নোটিশ পাঠিয়েছিলাম। তবে তারপরও এ বিষয়ে উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় আজ রিট আবেদন করেছি।’

মন্ত্রিপরিষদের সদস্য এখন ৪৬ জন। অথচ তাদের বসবাসের জন্য সরকারি বাসা রয়েছে মাত্র ২৩টি। ফলে ৪৬ মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীর মধ্যে ২৩ জনেরই কোনো আবাসন নেই। বাকি ২৩ জন মন্ত্রী সরকারি বাসা বরাদ্দ পেয়েছেন। কিন্তু বরাদ্দ করা বাসায় এখনও উঠতে পারেননি ১২ জন। কারণ গত মন্ত্রিপরিষদের মেয়াদ শেষ হলেও সরকারি বাসা ছাড়েননি অনেক সাবেক মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী।

এ ছাড়া ওয়ান-ইলেভেন সরকারের আমলে একাধিক সচিব মন্ত্রীদের বাসা বরাদ্দ নিয়ে পর্যায়ক্রমে বসবাস করে চলেছেন। মন্ত্রীদের আবাসন সংকট হলেও তাদের বাসা বদল হয়নি। এ পরিস্থিতিতে নির্বাচনী এলাকা থেকেই অফিস করছেন অনেক মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রী।

সরকারি আবাসন পরিদফতর সূত্রে জানা যায়, বাসা স্বল্পতার কারণে আবেদন করে বাসা পাননি ছয় মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রী। কয়েকজন মন্ত্রী আবাসন সংকটের কথা জানতে পেরে জানিয়েছেন, তাদের আপাতত বাসার প্রয়োজন নেই। কয়েকজন আবেদনই করেননি।

আবেদন করে বাসা না পাওয়া ছয় মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী হলেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী ইমরান আহমদ, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান, পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক, সংস্কৃতিবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ এবং যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল।

তাদের দেওয়ার মতো কোনো বাড়ি নেই বলে জানিয়েছে আবাসন পরিদফতর। একই কারণে আরও ১৭ মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীকে বাসা বরাদ্দ দিতে পারেনি সরকার।

মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীদের বসবাসের জন্য বর্তমানে ১৬টি বাংলো ও ১৭টি অ্যাপার্টমেন্ট রয়েছে। এ ছাড়া নতুন ১০টি অ্যাপার্টমেন্ট তৈরি হচ্ছে। এতে মন্ত্রীদের বসবাসের জন্য মোট বাসা হবে ৩৩টি। তবে নতুন ১০টি অ্যাপার্টমেন্টের কাজ শেষ হতে আরও কয়েক মাস লাগবে।

এর মধ্যে মন্ত্রিসভার পরিধি আরও বাড়তে পারে। কারণ, সর্বশেষ মন্ত্রিসভায় প্রধানমন্ত্রী ছাড়া সদস্য ছিলেন ৫২ জন। আর বর্তমান মন্ত্রিসভায় সদস্য রয়েছেন ৪৬ জন। ফলে নতুন ১০টি অ্যাপার্টমেন্ট তৈরি হলেও আরও প্রায় ২০টি বাসা সংকট থাকবে।