• ঢাকা
  • বুধবার, ২৩শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং | ৮ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২৩শে সফর, ১৪৪১ হিজরী

সকাল ৮:০৬

শিগগির যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সম্মেলন : শেখ হাসিনা


নতুন কাগজ ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, নতুন কমিটি গঠনে খুব শিগগির যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। শক্তিশালী কমিটি গঠনে সময়ের প্রয়োজন। তাই সঠিক সময়েই সম্মেলনের মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের নতুন কমিটি গঠন করা হবে। এ নিয়ে চিন্তার কোনো কারণ নেই।

নিউইয়র্কের স্থানীয় সময় রোববার বিকেলে জাতিসংঘ বাংলাদেশ মিশনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের নতুন কমিটি নিয়ে প্রবাসী আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের মাঝে গত একমাস ধরে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। এ বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, `যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ আমার হাতেই তৈরি করা। এখানকার সবাইকেই আমি ভালোভাবেই চিনি ও জানি। এখানকার বিষয়টি অন্যদের চেয়ে আমিই ভালো জানি। তাই যথাসময়েই কমিটি করা হবে একটি সম্মলনের মাধ্যমে। ইতোমধ্যে অনেকেই তো কমিটি গঠন করেই ফেলেছেন বলেও শোনা যাচ্ছে।’

একটু সময় নিয়ে হলেও সম্মেলনের মাধ্যমে একটি শক্তিশালী কমিটি গঠন করা হবে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

এদিকে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রধান দুটি পদের জন্য বিভিন্ন ব্যক্তি ও নতুন মুখের আজগুবি নাম প্রকাশ পাচ্ছে, তা নিয়ে কর্ণপাত না করার জন্য নেতাকর্মীদের আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সচেতন নেতারা। তারা বলেন, দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের যে কমিটি উপহার দেবেন তা সবাই মেনে নেবেন। এতে কারও কোনো আপত্তি নেই।

দলীয় পটভূমিহীন, সাংগঠনিক অদক্ষতা ও দুর্নীতিপরায়ণ ব্যক্তিদের কবল থেকে দলকে রক্ষা করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুদৃষ্টি কামনা করেছেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ-সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান ও ভারপ্রাপ্ত সা.সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদের নানা দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ৮ বছর আগে মেয়াদোত্তীর্ণ যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের কমিটি ভেঙে দেয়া হয়েছে। ফলে গত শনিবার (২৮ সেপ্টেম্বর) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নাগরিক সংবর্ধনা মঞ্চে আওয়ামী লীগের কোনো নেতাকে বসতে দেয়া হয়নি। প্রতি বছর প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে মঞ্চে সাধারণ নেতাকর্মীদের বসার সুযোগ করে দিয়ে মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নিতেন ড. সিদ্দিকুর রহমান ও আব্দুস সামাদ আজাদ। গত বছর প্রধানমন্ত্রীর নাগরিক সংবর্ধনা চলাকালীন সময় সাধারণ নেতাকর্মীরা ‘নো মোর সিদ্দিক’ বলে স্লোগানে অপ্রীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি করে। নেতাকর্মীরাদের দাবির মুখে প্রতি বছরের প্রথা ভেঙে এবারে সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান ও ভারপ্রাপ্ত সা.সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদসহ তাদের সমর্থনকারীদের মঞ্চে না উঠিয়ে সুষ্ঠ ও সুসশৃঙ্খল পরিবেশে প্রধানমন্ত্রীর নাগরিক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানকে সার্থক করার সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।