• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং | ৫ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২০শে মুহাররম, ১৪৪১ হিজরী

দুপুর ১:২৭

রাণীনগরের পিআইও’কে বদলি করতে চেয়ারম্যানদের আবেদন


নওগাঁ প্রতিনিধি : নওগাঁর রাণীনগর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মেহেদি হাসানকে অন্যত্র বদলি করতে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানসহ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানরা দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব বরাবর আবেদন করেছেন। বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত প্রতিবেদন,স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও জনসাধারণ হতে প্রাপ্ত অভিযোগ সুত্রে চেয়ারম্যানরা এ আবেদন করেছেন বলে জানাগেছে।

লিখিত আবেদন সুত্রে জানা গেছে, প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার মেহেদি হাসান গত ২০১২ সাল থেকে নওগাঁর রাণীনগর উপজেলায় কর্মরত রয়েছেন। একজন সরকারি কর্মকর্তা দীর্ঘ প্রায় ৭ বছর যাবৎ কিভাবে একই উপজেলায় থাকতে পারেন এ নিয়ে জনমনে প্রশ্ন উঠেছে। রাণীনগর উপজেলায় কর্মরত অবস্থায় একাধিকবার তার বদলীর অর্ডার হলেও কর্মস্থল ত্যাগ তো দূরের কথা বার বার বদলী অর্ডার রহস্যজনক কারণে স্থগিত হয়ে অদ্যবদি পর্যন্ত স্বপদে তিনি বহাল রয়েছেন।

সর্বশেষ দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক (প্রশাসন-১) ড. মো: হাবিব উল্লাহ বাহার স্বাক্ষরিত ৫১.০১.০০০০. ০০৩. ১৯.০১২.১৮.১৮৪ নং স্মারকে এক অফিস আদেশের মাধ্যমে পিআইও মেহেদি হাসানকে জনস্বার্থে এবং প্রশাসনিক কারণে কুড়িগ্রামের রাজিবপুর উপজেলায় যোগদানের আদেশ দেয়া হয়। কিন্তু তিনি তার নতুন কর্মস্থলে যোগদান না করে এখনও রাণীনগরে নিয়মিত অফিস করছেন। বিষয়টি নিয়ে উপজেলা প্রশাসনের অন্যান্য কর্মকর্তাদের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। তাই প্রশাসনিক কার্য সুষ্ঠু ভাবে সম্পাদন করার স্বার্থে মেহেদি হাসানকে অন্যত্র বদলীর জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের লক্ষ্যে দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব বরাবর গত ১৯ মে একটি লিখিত আবেদন করেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো: আনোয়ার হোসেন হেলাল। উক্ত আবেদনে সর্মথন দিয়ে স্বাক্ষর করেছেন, সদর ইউপি চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান পিন্টু, বড়গাছা ইউপি চেয়ারম্যান সফিউল আলম, কালিগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম বাবলু, পারইল ইউপি চেয়ারম্যান মজিবর রহমানসহ আরো বেশ কয়েক জন চেয়ারম্যান।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার মো: মেহেদি হাসান বলেন, লিখিত আবেদনের বিষয়টি আমার জানা নেই। হয়তো তাদের স্বার্থসিদ্ধির জন্য অথবা শক্রতা মূলক করেছেন। কুড়িগ্রামের রাজিবপুরের যে আদেশ ছিল তা আমার উর্ধতন কর্তৃপক্ষই স্থগিত করেছেন।

এব্যপারে রাণীনগর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন হেলাল জানান, একটানা দীর্ঘ ৭/৮ বছর ধরে একই উপজেলায় একজন কর্মকর্তা কিভাবে চাকুরি করেন। তার বেশ কয়েকবার বদলির আদেশ আসলেও রহস্যজনক কারনে তা স্থগিত করিয়ে নেন। তার অনিয়ম,দূর্নীতির কারনে এবং কাজে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হচ্চে কারনে আমরা তাকে অন্যত্র বদলির আবেদন করেছি। আশা করছি সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবেন।