• ঢাকা
  • সোমবার, ২১শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং | ৬ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২১শে সফর, ১৪৪১ হিজরী

সকাল ৯:৪৪

রইচপুরে অবৈধ জমি দখলকে কেন্দ্র করে অর্ধশতাধিক ফলদ বৃক্ষ নিধন


স্টাফ রিপোর্টার: দেশব্যাপী যে সময় বৃক্ষরোপন কর্মসুচি চলছে, ঠিক সে সময় সরকারের নিদের্শকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে সাতক্ষীরা সদর রইচপুর এলাকায় চলছে ফলদ বৃক্ষ নিধনের মহা উৎসব। সপ্তাহ জুড়ে প্রায় অর্ধ শতাধিক বিভিন্ন প্রজাতির ফলদ বৃক্ষ কেটে দীর্ঘ ৩০ বছরের শান্তিপূর্ণ ভোগদখলীয় সম্পত্তি অবৈধ দখল নিতে একটি সন্ত্রাসী বাহিনী গাছ নিধন যজ্ঞে মেতে উঠেছে।

সন্ত্রাসীরা প্রায় ৩০ টা ফলদ আম গাছ, ২ টি লিচু, ৫টি জাম, ২০টা মেহগনি এবং বাঁশঝাড় কেটে সাবাড় করেছে। জমির প্রকৃত মালিক আহম্মাদ আলী সরদার বাধা দিতে গেলে ওই বাহিনীর প্রধান রইচপুর গ্রামের মৃত বাহার আলীর ছেলে শাহাবুদ্দীন, মুকুল,শিমুল ওজমিস উদ্দীন বিভিন্ন অস্ত্র সস্ত্র নিয়ে মহড়া দিতে থাকে। জমির মালিক আহম্মাদ আলীসহ তার পরিবারকে খুন জখম করার হুমকি দিচ্ছে।

খবর পেয়ে সংবাদকর্মীরা স্বরেজমিনে গাছ কাটার ছবি তুলতে গেলে ভুমিদস্যু বাহিনী তাদের উপর চড়াও হয়। অকথ্য ভাষায় গালি গলাজসহ ক্যামেরা সিনিয়ে নিতে যায়। এসময়এলাকার কিছু মুরুবীদের হস্তক্ষেপে ভুমি দস্যুরা পিছুহাটে।

সূত্রে জানা যায়, রইচপুর এলাকার মোকছেদ আলী গং তার পৌত্রিক এবং খরিদাকৃত পলাশপোল মৌজায় ১.২০ একর জমি দীর্ঘ ২০ বছর যাবৎ ভোগদখলে থাকে। ২০১০ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি ইটাগাছা এলাকার আহম্মাদ আলী সরদার উক্ত সম্পত্তি থেকে ৯৩ শতক সম্পত্তি মোকছেদ আলী গং এর নিকট থেকে কোবলা মুলে খরিদ করেন। যাহা আহম্মাদ আলী সরদারের নামে বর্তমান খতিয়ান নং- ৩৩৩৩/৮/১ ডিপি-৪৫২৫ দাগ-২২২৪ নাম পত্তন, চেক, দাখিলাসহ গত ১০ বছর যাবৎ শান্তিপূর্ণ ভোগদখলে আছে।

অপরদিকে ভুমি দস্যু মৃত বাহার আলী সরদারের ছেলে শাহাবুদ্দীন, মুকুল, শিমুল ও জমিস উদ্দীন বড় চাচা মোকছেদ আলী বিক্রিয়কৃত সম্পত্তি নিজেদের দাবী করে ওই জমির বিভিন্ন ফলদ বৃক্ষ কেটে অবৈধ জমি দখল নিতে বৃক্ষ নিধন অব্যহত রেখেছে। আহম্মদ আলী সরদারের অভিযোগ মোকছেদ আলী ওই সম্পত্তিতে ২০ বছর শান্তিপূর্ণ ভোগ দখলে ছিলো এরপর তিনি ২০১০ সালে কোবলা মূলে খরিদ করেন। তিনিও দীর্ঘ ১০ বছর শান্তিপূর্ণ ভোগ দখলে আছেন। সেখানে পাকা ঘর নির্মান, বিভিন্ন প্রজাতির শত শত বৃক্ষ রোপন, মৎস্য খামার গড়ে তুলেছেন। হঠাৎ তার ক্রয়কৃত ভোগ দখলে থাকা সম্পত্তি থেকে গাছ নিধন করে অবৈধ জমির মালিকনা দাবি করছে শাহাবুদ্দীন, মুকুল, শিমুল ও জমিস উদ্দীন।

ভুক্তভোগী আহম্মদ আলী সরদার ন্যায় বিচার প্রর্থনা করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এবং পুলিশ সুপারের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।