• ঢাকা
  • সোমবার, ২১শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং | ৬ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২১শে সফর, ১৪৪১ হিজরী

সন্ধ্যা ৭:৩১

মোটরসাইকেল চালকদের প্রশিক্ষণ দিল সহজ


তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক: বাংলাদেশের দ্রুততম ক্রমবর্ধমান স্টার্টআপ ‘সহজ’, বিশ্বের বৃহত্তম বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাককে সঙ্গে নিয়ে মোটরসাইকেল চালকদের জন্যে আয়োজন করলো সড়কে নিরাপত্তা ও রক্ষণশীল চালনা প্রশিক্ষণ কর্মসূচির।

ব্র্যাক ড্রাইভিং ট্রেইনিং স্কুলে গত ১২ থেকে ১৫ মে এই বিশেষ প্রশিক্ষণ কর্মসূচির আয়োজন করা হয়।

মোটরসাইকেল চালকরা এতে সড়ক নিরাপত্তা নিশ্চিতকল্পে পরিকল্পিত আন্তর্জাতিক মানের ‘ব্র্যাক সুরক্ষা’ কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেন।

প্রথমবারের মতো বাংলাদেশে কোন রাইড-শেয়ারিং প্রতিষ্ঠান চালকদের নিরাপত্তায় এ ধরনের পরীক্ষিত প্রশিক্ষণ কর্মসূচির আয়োজন করলো।

এ নিয়ে সহজের প্রতিষ্ঠাতা ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক মালিহা এম কাদির বলেন, ‘দেশের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় রাইড শেয়ারিং প্রতিষ্ঠান হিসেবে নিরাপদ সড়ক উন্নয়নে ভূমিকা পালন করা আমাদের দায়িত্ব। নিরাপদ সড়ক গড়ার এ উদ্যোগে ব্র্যাক রোড সেফটি প্রোগ্রামের সহায়তা পাওয়ায় আমরা গর্বিত। নগরে পরিবহণ সেবা প্রদানে আমাদের রাইডাররা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকলেও সড়কে যানজট এবং দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে তারাই সবচেয়ে বেশি ভুক্তভোগী। তাই চালকদের নিজেদের ও যাত্রীদের ছাড়াও পথচারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে রক্ষণশীল যানবাহন চালনার গুরুত্ব সম্পর্কে জানা খুবই জরুরি। প্রতিটি রাইডারই একেকজন ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা হিসেবে দেশের অর্থনীতিতে দারুণ ভূমিকা রেখে চলেছেন। তাই, তাদের জীবিকা অর্জনের জন্যেই নিরাপদে গাড়ি চালনা আবশ্যিক একটি বিষয়। এ প্রশিক্ষণ কর্মসূচির মাধ্যমে সড়কে নিরাপত্তা উন্নয়নে আমরা দারুণ ভূমিকা রাখতে পারবো বলে বিশ্বাস করি।’

এ প্রশিক্ষণ কর্মসূচিতে মোটরসাইকেল চালকদের প্রাতিষ্ঠানিক প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়। কর্মসূচিতে অংশগ্রহণকারীদের সড়কে নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠায় রক্ষণশীল চালনার প্রতি সংবেদনশীল করে গড়ে তোলা হয়। প্রশিক্ষণ চলাকালীন সময়ে অংশগ্রহণকারীদের সড়কে চলাচলের নিয়মনীতি মেনে চলা, ইতিবাচক মনোভাব ধরে রাখা এবং নিরাপদ ও রক্ষণশীল চালনায় অভ্যস্ত করে তোলার প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। প্রশিক্ষণ চলাকালীন সময়ে বেশকিছু ভিডিও আর জটিল পরিস্থিতি উপস্থাপন করে সেগুলো দ্বিপাক্ষিক আলোচনার মাধ্যমে নিরাপদে মোটরসাইকেল চালনার জন্যে অংশগ্রহণকারীদের মাঝে ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি তৈরিতে সহায়তা করা হয়। এছাড়াও, রক্ষণশীল ড্রাইভিং প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কিভাবে জ্বালানি, মেরামত এবং রক্ষণাবেক্ষণ খরচ ৩০ শতাংশ পর্যন্ত নামিয়ে আনা সম্ভব সে বিষয়টি চালকদের শেখানো হয়।