• ঢাকা
  • সোমবার, ৯ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং | ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১১ই রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরী

দুপুর ১২:২০

মানিকছড়িতে সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের মুলহোতা শাহিন


খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি : মানিকছড়িতে সন্ত্রাসী, চাঁদা বাঁজী, ভুমি দখল, নৈরাজ্য সৃষ্টি কারী এই আবুল হোসেন (শাহিন) খুটির জোরে সে দীর্ঘদিন ধরে সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে জড়িত থাকার পরও প্রসাশন তার বিরুদ্ধে কোনো ভুমিকা নিচ্ছে না কেন সে নিয়ে এলাকায় নানান প্রশ্ন দেখা দিচ্ছে।

এসব সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে পুলিশকেও ব্যবহার করার অভিযোগ উঠেছে। সম্প্রতি, মানিকছড়ি থানার দায়িত্বরত এক পুলিশ অফিসার কাজী মোহাঃ শাহনেওয়াজ কে নিয়ে শাহিন অন্যের রেকর্ডীয় জায়গা দখলের চেষ্টা করেছিল। ভুমির মালিক উদ্বোতন কর্তৃপক্ষকে জানানোর পর তা ব্যর্থ হয়েছে।

গত, ২২ জুলাই ২০১৯ সকাল ১০ ঘটিকায় স্থানীয় কিছু লোক জন নিয়ে আবুল হোসেন শাহিনসহ ৭-৮ জন সন্ত্রাসী কায়দায় মানিকছড়ি উপজেলাধীন তিনটহরীতে স্থানীয় বাসিন্দা আবু তালেব, শাহ আলমসহ ৪-৫ পরিবারের জায়গা অবৈধ ভাবে সরকারী রেকর্ড ভুক্ত মালিকানা জায়গা জোর পূর্বক দখল করে ঘর নির্মান করার চেষ্ঠা করেছে। তখন মানিকছড়ি এস আই উপস্থিতিতে জায়গা দখল করে ঘর নির্মানের কোনো আদেশ তিনি পেয়েছেন কিনা জানতে চেয়েছে জমির মালিকেরা। তখন তিনি বলেন, অন্য কাজে এসেছি, ভূমি দখলের চেষ্টার বিষয়টি দেখেছি।

জমির মালিক, শাহ আলমসহ তারা তিন ভাইয়ের জায়গার ঘর নির্মান ও পিলার স্থাপন করতে গেলে এ বিষয়ে মানিকছড়ি থানা অফিসার ইনচার্জ আমির হোসেন কে জানালে তিনি লিখিত ভাবে অভিযোগ করতে বলেন। পরবর্তীতে লিখিত ভাবে থানা অভিযোগ দায়ের করলে ততক্ষনাৎ আমির হোসেন ওসি ও শানেওয়াজ গিয়ে ঘরের নির্মান কাজ বন্ধ করে দেয় এবং স্থানীয় চেয়ারম্যান, এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গরা দুইপক্ষকে ডেকে শান্তিশৃঙ্খলা বজায় রাখতে বলা হয়।

অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, ইতি পূর্বে ফটিকছড়ির এলাকায় সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে জরিত থাকার ফলে পুলিশ ও এলাকাবাসীর ভয়ে আবুল হোসেন শাহিন, বর্তমানে গচ্ছাবিল মন্দিরপাড়া মানিকছড়ি উপজেলা, আরেক জন শাহজাহান তার বাড়ি তিনটহরী মানিকছড়ি উপজেলা, এবং বৈহিরাগত কিছু সন্ত্রাসী যাদের বাড়ি মানিকছড়ি গচ্ছাবিলে বসবাসরত অবস্থায় আছে।

২২ জুলাই ২০১৯ খাগড়াছড়ি জেলা পুলিশ সুপার মো: আহমার উজ্জামান ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এসএম সালাউদ্দীনকে বিষয়টি জানানো হয়।