• ঢাকা
  • সোমবার, ১৪ই অক্টোবর, ২০১৯ ইং | ২৯শে আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১৪ই সফর, ১৪৪১ হিজরী

দুপুর ১২:২৯

বিভক্ত হয়ে পড়েছে মোহামেডানের সাবেক খেলোয়াড়রা


নতুন কাগজ ডেস্ক: ক্যাসিনো ঘটনায় পক্ষে-বিপক্ষে বিভক্ত হয়ে পড়েছে মোহামেডানের সাবেক খেলোয়াড়রা। সাবেক খেলোয়াড়দের দাবি, ব্যক্তিস্বার্থে ক্যাসিনো বসানো হয়েছে ঐতিহ্যবাহী ক্লাবটিতে।
এ প্রসঙ্গে বাদল রায় বলেন, ৪০ কোটি টাকা পাচার হয়েছে বিদেশে। এটা দেশ বিরোধী কাজ ছাড়া আর কিছুই না। আমি তাদের শাস্তি চাই। মোহামেডানের মতো ক্লাবকে তারা তলানিতে নিয়ে এসেছে।
বর্তমান কমিটির পরিচালক স্বীকার করেছেন, জেনে বুঝেই বসানো হয়েছে ক্যাসিনো। তবে সেটি কেবলই ক্লাবের স্বার্থে, দাবি তার।
ক্লাবটির পরিচালক প্রতাপ শংকর বলেন, আমরা অভুক্ত। ভাগ যেখান থেকেই আসুক, আমরা খাবো। কিন্তু যে টাকাটা এসেছে তাতো আমরা কোনো খারাপ কাজে ব্যবহার করি নি। যা করেছি ক্লাবের জন্য করেছি। প্লেয়ারদের জন্য করেছি।
ক্লাবের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রেরও অভিযোগ এনেছেন সাবেক ফুটবলাররা। দাবি তুলেছেন, ক্লাবের ডিরেক্টর ইনচার্জ আটককৃত লোকমান হোসেন ভুঁইয়াসহ বর্তমান কমিটির পদত্যাগের।
বাদল রায় বলেন, চালাতে না পারলে কমিটি কেনে থাকবে? জুয়া আসর বসানোর জন্য তাদের দায়িত্ব দেয়া হয়নি। ক্লাবের কিছু নিয়ম আছে। এজিএম করতে হয়। না পারলে কমিটি পরিবর্তন হয়। এর জবাবদিহি কে করবে?
পাল্টা অভিযোগ আছে বর্তমান পরিচালকদেরও। তাদের অভিযোগ, যারা পদত্যাগের দাবি জানাচ্ছেন তারা গেল এক দশকেও ছিলেন না ক্লাবের পাশে।
ক্লাবের বর্তমান পরিচালক প্রতাপ শংকর বলেন, ক্লাবের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ থাকলে তা ক্লাবে না জানিয়ে পত্রিকার মাধ্যমে কেনো জানাচ্ছে তারা?
এমনিতেই ক্রীড়াঙ্গনে মোহামেডানের দাপুটে পদচারণা নেই দীর্ঘদিন। তার ওপর সময় মতো হয়নি নির্বাচন, হয়নি এজিএমও। এসবের মধ্যেই সাবেকদের মধ্যকার দ্বন্দ্ব আর বিভক্তি যেভাবে প্রকট হয়ে উঠেছে, তাতে কবে নাগাদ সুদিন ফিরবে ক্লাবটিতে সেই প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে।

নতুন কাগজ/আরকে