• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ১৪ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং | ২৯শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১৫ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরী

রাত ৪:২৬

বিটিসিএলের উপ মহাব্যবস্থাপককে দুদকের জিজ্ঞাসাবাদ


নতুন কাগজ ডেস্ক: বিটিসিএলের আন্তর্জাতিক কল দুর্নীতির মাধ্যমে ২০৫ কোটি টাকা বিদেশে অর্থ পাচারের অভিযোগে বিটিসিএল এর উপ মহাব্যবস্থাপক হাম্মাদ মুজিবকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে দুদক।
বৃহস্পতিবার (৩১ অক্টোবর) দুপুরে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন দুদকের তিন সদস্যের টিম। অভিযোগে বলা হয়,২০০৮-২০০৯ অর্থবছর পর্যন্ত বিটিসিএলের বৈদেশিক কল আদান-প্রদান করা হতো মাত্র ২৫টি ন্যাশনাল ক্যারিয়ারের মাধ্যমে। ওইসব ক্যারিয়ার যথাযথভাবে বিটিসিএলকে বৈদেশিক রেমিট্যান্স দিত। কিন্তু এরপর বৈদেশিক ক্যারিয়ারের নামে প্রায় ৬০ থেকে ৭০টি প্রাইভেট ক্যারিয়ারকে সংযোগ দেওয়া হয়।
এসব ক্যারিয়ারের বেশির ভাগই ভুয়া কাগজপত্রের মাধ্যমে সংযোগ নিতে সক্ষম হয় এবং গত কয়েক বছরে বিটিসিএলের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও একটি প্রভাবশালী চক্রের সহায়তায় বিদেশি কলের অর্থ আত্মসাতে লিপ্ত হয়। এর ফলে ২০০৮-২০০৯ অর্থবছরে বিটিসিএলের বৈদেশিক রাজস্ব আয়ের তুলনায় পরবর্তী অর্থবছরগুলোয় আয় অর্ধেকে নেমে আসে। এর সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে বিটিসিএলের সাবেক দুই ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ ১০ কর্মকর্তার নাম আসে।
দুদকের অনুসন্ধান প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১১ সালের ডিসেম্বর থেকে ২০১২ সালের নভেম্বর পর্যন্ত বিটিসিএলের বনানী ও মহাখালী আন্তর্জাতিক এক্সচেঞ্জে তিনটি ইন্টারকানেকশন এক্সচেঞ্জ থেকে বিভিন্ন অপারেটরে বিদেশ থেকে যে কল আসে তা থেকে ২১১ কোটি ৮৩ লাখ ৬৬ হাজার ৬৮.২৮ মিনিট কল কম দেখানো হয়েছে।
যার মূল্য ৭ কোটি তিন লাখ ৯১ হাজার ৭৭২ ডলার বা ৫৭৫ কোটি ৩৩ লাখ ৮২ হাজার ৯৭৫.৫১ টাকা। কল ডাটা সঠিকভাবে রেকর্ডভুক্ত না করে, কল ডাটা বিশেষ প্রক্রিয়ায় মুছে ফেলে এবং অবৈধ রুটের মাধ্যমে কল বাইপাস করে সরকারের এই বিপুল পরিমাণ রাজস্ব ক্ষতি করা হয়েছে। বিটিসিএলের এই দুর্ণিতি অনুসন্ধানের সময়ই বিদেশে চলে যান হাম্মাদ মুজিব।

নতুন কাগজ/আরকে