• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ১২ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং | ২৭শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১৪ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরী

দুপুর ২:১২

প্রধানমন্ত্রীর চীন সফর : রোহিঙ্গা সংকট নিরসনে উল্লেখযোগ্য ভুমিকা রাখবে


মো: সাহেদ :  বাংলাদেশের এখন ভয়াবহ সংকটের নাম ‘রোহিঙ্গা সংকট’। এর দ্রুত সমাধান না হলে বাংলাদেশে এক ভয়াবহ পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে।এ নিয়ে দেশ-বিদেশের বিশেষজ্ঞরা নানাভাবে তাঁদের আশঙ্কার কথা ব্যক্ত করছেন।

আমাদের প্রধানমন্ত্রী এ বিষয়টি নিয়ে যথেষ্ট সচেতন।তিনি সংকট সমাধানে নানা দেশ নানা জনের সঙ্গে কথা বলছেন। সম্প্রতি তিনি জাপান, সৌদি আরব ও ফিনল্যান্ড সফর করেছেন।শুধু তাই নয় এ নিয়ে তিনি গণভবনে সংবাদ সম্মেলন করেছেন।সেখানে তিনি সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে রোহিঙ্গা সংকটের নানা দিক তুলে ধরেছেন। সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান, রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে এবং তাদের প্রত্যাবাসন নিশ্চিত করতে চীন যাতে কার্যকর ভূমিকা রাখে সেই লক্ষ্যে আগামী মাসে তিনি চীন সফর করবেন। এই সংকট নিয়ে অনেকে অনেক  স্বার্থ হাসিল করতে চায়—সে বিষয়েও প্রধানমন্ত্রী স্পষ্ট ধারণা  দিয়েছেন। তিনি বলেন, দাতা সংস্থার লোকজন চায় না, রোহিঙ্গারা ফিরে যাক। এমনকি কিছু রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে সরিয়ে নেওয়ার উদ্যোগেরও বিরোধিতা করছে তারা। অথচ এরই মধ্যে সেখানে রোহিঙ্গাদের জন্য মজবুত ও সুন্দর ঘর তৈরি করে রাখা হয়েছে। অথচ তারা এখন সখানে যেতে চাচ্ছেন না।

প্রধানমন্ত্রী স্পষ্টতই বলেন, পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়ার ব্যাপারে মিয়ানমারের সদিচ্ছার ঘাটতি রয়েছে। চুক্তি করেও তারা চুক্তির শর্ত মানছে না। সেখানে রোহিঙ্গাদের ফিরে যাওয়ার মতো পরিবেশ তৈরির কাজটিও তারা ঠিকমতো করছে না। বিশেষঞ্জরাও মনে করেন,  রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের ক্ষেত্রে চীনই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। কারণ মিয়ানমার বর্তমানে চীনের ওপর অনেক বেশি নির্ভরশীল। বাংলাদেশের সঙ্গেও চীনের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে। কাজেই আমরা আশা করতেই পারি, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আসন্ন চীন সফর এ সংকট সমাধানে অত্যন্ত কাজে দিবে ।

কক্সবাজারে বর্তমানে ১১ লাখের বেশি রোহিঙ্গা অবস্থান করছে। তারা স্থানীয় বিভিন্ন অপরাধীচক্রের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ছে। অস্ত্র ও মাদক চোরাচালানসহ নানা ধরনের অপরাধে তাদের সম্পৃক্ততা পাওয়া যাচ্ছে। অনেকেই রাতের আঁধারে ক্যাম্প ছেড়ে পালিয়ে যাচ্ছে। ফলে তাদের নিয়ন্ত্রণে রাখা কঠিন হয়ে উঠছে।

প্রধানমন্ত্রীর  এবারের জাপান, সৌদি আরব  ও ফিনল্যান্ড সফর অত্যন্ত ফলপ্রসূ হয়েছে বলে আমরা মনে করি। কারন রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে বাংলাদেশের পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে দেশগুলো।আমরা বিশ্বাস করি প্রধানমন্ত্রীর চীন সফরও রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে অগ্রনী ভুমিকা রাখবে।