• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ৭ই এপ্রিল, ২০২০ ইং | ২৪শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১৩ই শাবান, ১৪৪১ হিজরী

সন্ধ্যা ৭:৪৮

পিএসএলের বাকি ম্যাচ নভেম্বরে


স্পোর্টস ডেস্ক : করোনাভাইরাসে স্থগিত হওয়া পিএসএলের সেমি-ফাইনাল ও ফাইনাল ম্যাচ তিনটি নভেম্বরে আয়োজন করার পরিকল্পনা করছে পিসিবি। তবে এ বিষয়ে ফ্যাঞ্চাইজিগুলোর সঙ্গে আলোচনা করতে হবে বলে জানিয়েছেন পিসিবির প্রধান নির্বাহী ওয়াসিম খান।

আগামী অক্টোবরে অস্ট্রেলিয়ায় শুরু হওয়ার কথা টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। বৈশ্বিক এই টুর্নামেন্ট শেষে নভেম্বরে ১০ দিনের ভেতর স্থগিত হওয়া পিএসএলের বাকি ম্যাচগুলো আয়োজন করতে চায় পিসিবি। এ ছাড়া পিএসএল নিয়ে বেশ কিছু পরামর্শও আসছে বলে জানিয়েছেন ওয়াসিম, ‘আগে আমাদের বসতে হবে ও পরিস্থিতি নিয়ে সব ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিকদের সঙ্গে আলোচনা করতে হবে। কারণ আরও কিছু পরামর্শ এসেছে যে পয়েন্ট টেবিলে শীর্ষে থাকা মুলতান সুলতান্সকে শিরোপাজয়ী হিসেবে ঘোষণা করা অথবা আগামী বছর পিএসএল-৬ এর আগে এবারের বাকি ম্যাচগুলো আয়োজন করার।’

তবে দেশটিতে আক্রান্ত আর মৃতের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় নিরবিচ্ছিন্ন চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে করাচির একাডেমি মাঠকে সাময়িক চিকিৎসা ঘাঁটি হিসেবে প্রস্তুত রেখেছে, গতকালই এ তথ্য নিশ্চিত করেন পিসিবির এক মুখপাত্র।

এই সঙ্কটের মাঝেও পূর্ব নির্ধারিত সময়েই ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (সিপিএল) মাঠে গড়ানোর আশা প্রকাশ করেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ড গতকাল দেয়া এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে আগস্ট-সেপ্টেম্বরেই হবে সিপিএলের আসন্ন আসর, ‘এখনও হাতে যথেষ্ট সময় আছে। এই মুহূর্তে সিপিএল পেছানোর মতো কোনে পরিস্থিতি ওয়েস্ট ইন্ডিজে হয়নি। যদি খারাপ কিছু না হয় নির্ধারিত সময়েই হবে আসর।’

এদিকে, বিসিসিআই, বিসিবির পর নিজেদের সদর দপ্তরও বন্ধ ঘোষণা করেছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি)। দুবাইয়ের হেড-কোয়ার্টারে কর্মরত সবাইকে ঘরে বসে সকল কার্যক্রম করার জন্য নির্দেশনা দেয়া হলো। করোনা পরিস্থিতি নিয়ে আতঙ্কের কারণেই এমন সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছে বিশ্ব ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থা। তবে এরমধ্যেই তিনদিন পর (শুক্রবার) ভিডিও কনফারেন্সে এক জরুরি বৈঠকে বসবেন আইসিসির গভর্নিং বডির সদস্যরা। সেই সভায় সভাপতিত্ব করবেন আইসিসি চেয়ারম্যান শশাঙ্ক মনোহর। পরিচালনায় থাকবেন প্রধান নির্বাহী মানু সাওনে।

সেখানেও থাকবে করোনাভাইরাস প্রসঙ্গ। কারণ এই প্রাণঘাতি ভাইরাসের প্রভাবে থমকে গেছে ক্রিকেট স‚চি। স‚চির যে বিপর্যয় ঘটেছে- তা থেকে কিভাবে মুক্তি মিলবে, তা নিয়ে কথা বলবেন কর্তারা। এমন কী অক্টোবরে ঠিক সময়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ হবে কীনা সেই প্রসঙ্গটাও উঠে আসবে।

তার আগে দুবাইয়ে সদর দপ্তর বন্ধ। সবার আগে নিজের নিরাপত্তা। ঘরে থাকলেই কেবল করোনার বিস্তার আটকানো সম্ভব। এ কারণে পরবর্তী নির্দেশনা দেয়ার আগ পর্যন্ত বাসায় বসেই কাজ চালাবেন আইসিসির কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।