• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২২শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং | ৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২৪শে রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরী

সকাল ৮:২১

পাবিপ্রবি উপাচার্যের পদত্যাগ দাবীতে বাসভবন ঘেরাও


পাবনা সংবাদদাতা : দূর্ণীতি ও অনিয়মের অভিযোগে পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ব বিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. এম রোস্তম আলীসহ প্রশাসনের সকল কর্মকর্তার পদত্যাগ দাবীতে উপাচার্যের বাসভবন ঘেরাও করে বিক্ষোভ করছেন শিক্ষার্থীরা।

শনিবার সকাল ৯টা থেকে শিক্ষার্থীদের ক্যাম্পটাসের বিজ্ঞান ভববনের সামনে সমবেত হয়। পরে সকাল ১০টারদিকে প্রশাসনিক ভবন অবরুদ্দ করে। বেলা ১১ টা থেকে শিক্ষার্থীরা ভিসির বাস ভবন ঘেড়াও করে। আন্দোলনের মুখে বাসভবনে অবরুদ্ধ আছেন উপাচার্য। পরে, উদ্ভুত পরিস্থিতি নিয়ে সেখানে প্রক্টরিয়াল বডি, সকল অনুষদের ডিন ও বিভাগীয় প্রধানদের নিয়ে বৈঠকে বসেছেন।

বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা জনান, সম্প্রতি ফাঁস হওয়া পাবিপ্রবি উপাচার্য ড. এম রোস্তম আলীর কাছে চাকরী প্রার্থীর ঘুষ ফেরতের অডিও তদন্তসহ ১২ দফা দাবি পূরণে গত পাঁচদিন ধরে আন্দোলন করে আসছেন শিক্ষার্থীরা। দাবী পূরণে বেঁধে দেয়া সময়সীমা পার হলেও প্রশাসন কোন পদক্ষেপ না নেয়ায় উপাচার্যসহ প্রশাসনের পদত্যাগের দাবিতে উপাচার্যের বাসভবন ঘেরাও করেছেন তারা। এই আন্দোলন চলাকালে শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ে মুল ফটকে তালা লাগিয়ে দিয়েছে। এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ে সকল প্রকার যানবাহন এবং প্রশাসিনি সকল কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যায়। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা সকল বিভাগের ক্লাস ও ক্লাসপরিক্ষা বর্জনের ঘোষনা দেন। দাবী পূরণ না হওয়া আন্দোলন কর্মসূচী চালিয়ে যাওয়ারও ঘোষণা দেন তারা।

সম্প্রতি গত ২৪ অক্টোবর বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগ পরিক্ষায় চাকুরী প্রার্থীর সাথে উপচার্যের কথপোকথনের ঘুষের টাকার অর্থ লেনদেরে অডিও ভাইরাল হয়। এর পর থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ অশান্ত হয়ে উঠে। শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন সময়ের বিশ্ব বিদ্যালয়ের প্রশাসন এবং উপচার্যের দূর্নীতির বিষয় এবং শিক্ষার্থীদের সমস্যার সমাধানের জন্য ১২ দফা নিয়ে মাঠে নামে। দাবি না মানার কারনে এবং সমস্যা সমাধান না হওয়ার কারনে গত বুধবার থেকে এক দফা দাবিতে আন্দোলনে শিক্ষার্থীরা। গত দুইদিন বিশ্ব বিদ্যালয় সাপ্তাহিক বন্ধ থাকার পরে শনিবার সকাল থেকে ভিসির বাস ভবন ঘেড়াও করে আন্দোলন করছে শিক্ষার্থীরা।

সাধারন শির্ক্ষীরা মনে করেন এই দূর্নীতি গ্রস্থ ভিসির ও প্রশাসনের প্রক্টোরিয়াল বডির পদত্যাগ না করলে সাধারন শিকার্থীদের সমস্যার সমাধান কখনো হবে। তাই অতিদ্রুত ভিসি এবং প্রশাসনিক সকল কর্মকর্তা পদত্যাগ দাবি করেন শির্ক্ষীরা।