• ঢাকা
  • রবিবার, ১৫ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং | ৩০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১৬ই রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরী

রাত ৪:০৫

নোয়াখালীতে বসতঘর ও গবাদিপশু লুট, খোলা আকাশের নিচে জীবন যাপন


নোয়াখালী জেলা প্রতিনিধি: নোয়াখালী সদর উপজেলার ধর্মপুর গ্রামে চাঁদার টাকা না দেওয়ায় আসবাবপত্র, স্বর্ণালঙ্কারসহ বসতঘর, হাস-মুরগি ও গরু লুট করে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে স্থানীয় সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে। বর্তমানে ভুক্তভোগী ওই পরিবারের সদস্যরা খোলা আকাশের নিচে চরম মানবেতর জীবন যাপন করছে।

গতকাল রোববার দুপুরে সরেজমিন উপজেলার ধর্মপুর ইউনিয়নের ধর্মপুর গ্রামে গিয়ে দেখা যায় ঘরশূন্য বসত ভিটার উপর খোলা আকাশের নিচে তাবু ঝুলিয়ে বাস করছে ভুক্তভোগী আবদুল মমিনের (৬০) পরিবারের সদস্যরা।

ভুক্তভোগী আবদুল মমিন বলেন স্থানীয় সন্ত্রাসী আবদুল মতলব, মোসলে উদ্দিন, করিম ও কামরুল দীর্ঘদিন যাবৎ ভুক্তভোগী পরিবারের কাছে ৩ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে আসছে। চাঁদার টাকা না দেওয়ায় গত ২৪জুন সকালে ওই সন্ত্রাসীরা দেশীয় অস্ত্র-সস্ত্র নিয়ে তার বসত বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে ঘরের আসবাবপত্র, স্বর্ণালঙ্কার, হাস-মুরগি ও ৪টি গরু লুট করে নিয়ে যায়। এসময় বাঁধা দিতে গেলে সন্ত্রাসীরা তার ছেলে আলী আকবর ও স্ত্রী লুৎফুর নাহারের উপর হামলা করে গুরুত্বর আহত করে। আহতদের নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করার পর ওইদিন রাতে লুটপাটের ঘটনায় সুধারাম থানায় মামলা দায়ের করায় পরের দিন ২৫ জুন বিকালে সন্ত্রাসীরা ক্ষিপ্ত হয়ে পুনরায় ওই বাড়িতে হামলা চালিয়ে আবদুল মমিনের বসতঘর ভেঙ্গে লুট করে নিয়ে যায়।

স্থানীয় বাসিন্দা আহম্মদ উল্যাহ, রফিক উল্যা, নুর উদ্দিন, মহিউদ্দিন, সাহাব উদ্দিনসহ স্থানীয়রা বলেন আবদুল মমিন ও আবদুল মতলবের মধ্যে দীর্ঘদিন যাবৎ ভূমি কেন্দ্র্ করে বিরোধ চলে আসছে। ওই বিরোধকে কেন্দ্র্ করে আবদুল মমিনের বসত বাড়িতে হামলা করে আসবাবপত্র ও বসতঘর লুট করে আবদুল মতলবের লোকজন।

সুধারাম মডেল থানার ওসি আনোয়ার হোসেন জানান ভূমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ওই ঘটনা ঘটেছে। থানায় উভয় পক্ষের মামলা চলমান রয়েছে।