• ঢাকা
  • সোমবার, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২০ ইং | ১৩ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১লা জমাদিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরী

বিকাল ৪:০৮

দেশের সকল উন্নয়ন পরিকল্পনার সূচনা বঙ্গবন্ধুর হাত ধরেই- অর্থমন্ত্রী


অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, ‘দেশের সকল উন্নয়ন পরিকল্পনার সূচনা বঙ্গবন্ধুর হাত ধরেই। তার হাত ধরেই সংবিধান পেয়েছি। বঙ্গবন্ধু কবির মতো দেশের সকল উন্নয়ন সাজিয়েছেন। তিনি আমাদের মুক্তির কবি ছিলেন।’

শনিবার নগরীর হাতিরঝিলের এমফিথিয়েটারে অনুষ্ঠিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে এক আনন্দ উৎসবে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। এই  আনন্দ উৎসবের আয়োজন করে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ (ইআরডি)।

অনুষ্ঠান থেকে একযোগে বাংলাদেশের সকল উপজেলায় এবং কেন্দ্রীয়ভাবে উসব পালন ও বর্ণিল আতশবাজি করা হয়। বঙ্গবন্ধুর ইতিহাস ও বর্তমান সরকারের উন্নয়ন চিত্র তুলে ধরা হয় অনুষ্ঠানে।

মন্ত্রী বলেন, ২০৩১ সালে বাংলাদেশ তাইওয়ানকে ছাড়িয়ে যাবে। ২০৪১ সালে সোনার বাংলা গড়ে উঠবে।  বর্তমানে ১৯৩টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ ৩০ নম্বরে অবস্থান করছে। ২০২৭ সালে বাংলাদেশ ২৪তম অর্থনীতির দেশ হবে।

বঙ্গবন্ধু প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, আমাদের সরকারের একটাই লক্ষ্য বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়া। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়ন হলেই দেশ উন্নত হবে। বঙ্গবন্ধুর মতো মানুষেরা ক্ষণজন্মা ।এরা বেশি দিন বাঁচে না। বঙ্গবন্ধু আমাদের একটা স্বাধীন দেশ দিয়েছেন, আমাদের নিজস্ব পরিচয় দিয়েছেন। দেশের সকল উন্নয়ন পরিকল্পনার সূচনা বঙ্গবন্ধুর হাত ধরেই।

মন্ত্রী আরো বলেন, ‘আমাদের জীবনে বেদনার দিন একটাই; বঙ্গবন্ধুকে হারাতে হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর রেখে যাওয়া কাজ সম্পন্ন করতে হবে।  জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে হবে। আমাদের প্রধানমন্ত্রীর একটাই লক্ষ্য- জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করা। প্রধানমন্ত্রীর হাত ধরে অনেক স্বপ্ন এখন বাস্তব হয়ে আমাদের সামনে উঠে এসেছে। বঙ্গবন্ধুর লক্ষ্য অনুযায়ী সব কিছু বাস্তবায়ন করবো।’

‘৩০ লাখ মুক্তিযোদ্ধার নিকট আমাদের অনেক ঋণ। মুক্তিযুদ্ধে ২ লাখ মা বোন সব কিছু হারিয়েছেন। তাদের ঋণ পরিশোধ কখনও হবে না। তারপরও দেশের উন্নয়ন করলে তাদের আত্মা শান্তি পাবে। বঙ্গবন্ধুকে সব সময় স্মরণ করতে হবে। বঙ্গবন্ধু যেন হাজার বছর আমাদের সামনে উজ্জল নক্ষত্রের মতো থাকে। বঙ্গবন্ধুকে আমাদের মধ্যে আজীবন বাঁচিয়ে রাখতে তরুণদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান মন্ত্রী।’

নিজে উপস্থিত থেকে অনুষ্ঠান মালা সাজিয়েছেন  অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সচিব মনোয়ার আহমেদ।

ইআরডি সচিব বলেন, বঙ্গবন্ধুর বিশ্ব দরবারে আমাদের দিয়েছেন একটা ভূখণ্ড, একটি পতাকা, একটি মানচিত্র ও আমাদের পরিচয়। সেই ক্ষণজন্মার জন্মশতবার্ষিকীকে সামনে রেখেই ইআরডির পক্ষ থেকে আমাদের এই আয়োজন। তৃণমূল র্পায়ে বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবর্ষ স্বতঃস্ফূর্তভাবে উদযাপনের জন্য আমরা বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছি। আমাদের আজকের যে উন্নয়ন, তা বঙ্গবন্ধুর দেখানো পথ ধরেই তার সুযোগ্য কন্যা আমাদের প্রধানমন্ত্রী বাস্তবায়ন করছেন।