• ঢাকা
  • শনিবার, ৬ই জুন, ২০২০ ইং | ২৩শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ১৩ই শাওয়াল, ১৪৪১ হিজরী

বিকাল ৪:১৫

তালইয়ের ধর্ষণে ছয় মাসের অন্তঃসত্ত্বা কিশোরী


ময়মনসিংহ প্রতিনিধি : ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে মেয়ের ননদকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে। ধর্ষণের শিকার নবম শ্রেণিতে পড়ুয়া ওই কিশোরী এখন ছয় মাসের অন্তঃসত্ত্বা বলে জানা গেছে।

এ ঘটনায় বুধবার কিশোরীর বাবার করা মামলায় আতাউর রহমান নামে ওই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

আতাউরের বাড়ি পাগলা থানার পাইথল ইউনিয়নের গোয়ালবর গ্রামে। আর ভুক্তভোগী ওই কিশোরীর বাড়ি লালমনিরহাটের সদর উপজেলার কিসামতহারিটি গ্রামে।

পাগলা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ফায়েজুর রহমান বলেন, ‘গত মঙ্গলবার খবর পেয়ে পুলিশ ধর্ষণের শিকার মেয়েটিকে থানায় নিয়ে আসে। তখন মেয়েটি জানায় যে তার ভাবির বাবা তাকে ধর্ষণ করেছে। এ ঘটনায় মেয়েটির বাবা বেয়াই আতাউর রহমানকে আসামি করে মামলা করেন। এরপরই আতাউর রহমানকে বুধবার ভোরে গ্রেপ্তার করা হয়।’

পুলিশ কর্মকর্তা ফায়েজুর জানান, আতাউরের মেয়ের সঙ্গে ঐ মেয়েটির (ভিকটিম) ভাইয়ের পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। অভিযুক্ত আতাউর রহমান প্রায়ই মেয়ের বাড়িতে যাতায়াত করত। দুই থেকে তিন মাস আগে ভিকটিম মেয়েটি অসুস্থ হয়ে পড়লে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা করায় পরিবার। এতে মেয়েটি এক মাসের মতো জ্বরে ভোগেন।

কয়েকদিন আগে তার শারীরিক পরিবর্তন এলে ভাই ও ভাবি জেরাতে সে জানায়, তার তালই আতাউর রহমান গত ২৮ মে রাতে তাদের বাড়ির পরিত্যক্ত ঘরে ধর্ষণ করে। একথা কাউকে জানালে তার ভাই ও পরিবারের লোকজনের ক্ষতি করবে ভয়ে মেয়েটি এতদিন কাউকে কিছু জানায়নি।

পাগলা থানার ওসি শাহীনুজ্জামান খান বলেন, ওই কিশোরীকে মেডিকেল পরীক্ষার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃত আসামীকে বৃহস্পতিবার আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।