• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ১২ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং | ২৭শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১৩ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরী

রাত ৪:৫৮

গুইমারা আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিল সরগরম


খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি : আগামী ৫ সেপ্টেম্বর খাগড়াছড়ি জেলার গুইমারা উপজেলা আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হবে। উপজেলার সর্বত্র এখন বেশ সরগরম হয়ে উঠেছে। এবার নেতাকর্মীদের দাবি গণতন্ত্র বজায় রেখে ব্যালটের মাধ্যমে নির্বাচন অনুষ্ঠিত সম্পন্ন করা এজন্য আহবায়ক কমিটি ও গণতান্ত্রিক পন্থায় নির্বাচন অনুষ্ঠান করা অপরিহার্য হয়ে উঠেছে। আর এ নির্বাচনকে ঘিরে পুরো উপজেলায় রাজনৈতিক অঙ্গনে দেখা দিয়েছে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার আলোচনা। অতীত কর্মকান্ডে মূল্যায়ন নিয়ে ঝড় তুলছে চায়ের দোকানে। সবমিলিয়ে বেশ জমে উঠেছে এবারের গুইমারা উপজেলা আওয়ামী লীগের দলীয় নির্বাচন।

উপজেলা কমিটির অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ পদ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদক পদে একাধিক প্রার্থী থাকায় ব্যালট এর মাধ্যমে নির্বাচন অনুষ্ঠান যেমন অপরিহার্য হয়ে উঠেছে। অন্যদিকে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নিজেদের প্রচার-প্রচারণা আর নেতাকর্মীদের সাথে যোগাযোগ বাড়ানোর চেষ্টা সরগরম হয়ে পড়েছে। উপজেলার রাজনৈতিক ময়দান আয়োজক কমিটির সভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দ্বী করেছেন তিন জন সাধারণ সম্পাদক পদে চারজন সাংগঠনিক সম্পাদক এবং সাংগঠনিক পদে রয়েছে তিনজন।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, যেসব নেতাকর্মীদের খোঁজ নেওয়ার সময় হতো না, এখন হয়েছে তার বেতিক্রম। কাউন্সিলকে ঘিরে দলের কর্মী-সমর্থক ও ভোটারদের কদর বর্তমানে আকাশচুম্বী প্রতিনিয়ত। মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা। উপজেলা কমিটি গঠনের নির্বাচনে সভাপতি পদে ত্রিমুখী ও সাধারন সম্পাদক পদে এবং সাংগঠনিক সম্পাদক পদে ত্রিমুখী নির্বাচনে লড়াই দেখা দিয়েছে।

স্থানীয় নেতাকর্মীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, তারা কর্মীবান্ধব ও তাদের আস্থাভাজন নেতাকে নির্ণয় করতে চেষ্টা করেছেন। যাদের দলীয় কর্মকা-ের সব সময় পাওয়া যাবে না শুধু টাকা কমানোর জন্য নেতা হতে চায় তাদের বিষয়ে তারা সচেতন রয়েছেন। তারা বলেন অতীতে বিনাবাক্যে বিশেষ আশীর্বাদ নিয়ে অনেকে নেতা বনে গেছেন এমন ভুল আর হতে দেওয়া হবে না। তবে কাউন্সিলকে ঘিরে সবচেয়ে আলোচিত হচ্ছে সভাপতি পদ নিয়ে বর্তমান সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম দলীয় নেতাকর্মীদের খোঁজখবর না রাখায় চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। অনেকেই তাদের দাবি বিনাবাক্যে ও বিশেষ বিবেচনায় দীর্ঘদিন সভাপতির পদে অধিষ্ঠিত হয়েছেন। তিনি কিন্তু দলের নেতাকর্মীদের দুঃসময়ে পাশে দাঁড়াননি নিজের জন্য এইসব করেছেন।

অপরদিকে, বর্তমান কমিটির সাধারণ সম্পাদক উপজেলা রাজনীতিতে নিজেকে আওয়ামী লীগের প্রাণ ভোমরা হিসেবে এলাকায় পরিচিত করে তুলতে সক্ষম হয়েছেন। দলের কর্মী সমর্থক ভোটার কাউন্সিলের ছাড়াও রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত নন এমন সাধারন জনগন ও তার অন্ধ ভক্ত হয়ে পড়েছেন। যার প্রমাণ বিগত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিপুল ভোটে জয়ের মাধ্যমে নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষ দিয়েছ বলে জানান তিনি। তিনি জানান, উপজেলা আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা তাকে সভাপতি হিসেবে দেখতে চেয়ে ব্যানার-ফেস্টুন লাগিয়েছেন।