• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং | ৫ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২০শে মুহাররম, ১৪৪১ হিজরী

দুপুর ১:২৪

‘গণহত্যার’ শঙ্কা বাড়ছে কাশ্মীরে


আন্তর্জাতিক ডেস্ক : কাশ্মীরে ‘গণহত্যার’ শঙ্কা বাড়ছে বলে সতর্কবার্তা দিয়েছে পাকিস্তান। সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদের অধিবেশনে এ বার্তা দিয়েছেন পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কোরেশি।

মানবাধিকার পরিষদের ভাষণে তিনি বলেন, কাশ্মীরের মানুষ খুনি, বিদ্বেষী এবং অসহিষ্ণু শাসকগোষ্ঠীর কাছে জিম্মি। সেখানকার পরিস্থিতি রুয়ান্ডা, স্রেব্রেনিৎসা, রোহিঙ্গা, কিংবা গুজরাটের ভয়াবহ দাঙ্গার মতো আশঙ্কা জাগিয়ে তুলছে। 

চলমান উত্তেজনা প্রশমনে সহায়তা করার জন্য তিনি জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস এবং জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদকে আহ্বান জনান।

উল্লেখ্য, গত ৫ই আগস্ট ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের মধ্য দিয়ে কাশ্মিরের স্বায়ত্তশাসনের অধিকার ও বিশেষ মর্যাদা কেড়ে নেয় বিজেপি নেতৃত্বাধীন দেশটির কেন্দ্রীয় সরকার। লাদাখ ও কাশ্মিরকে দুটি পৃথক কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত করতে পার্লামেন্টে বিল পাস হয়। এই পদক্ষেপকে কেন্দ্র করে কাশ্মিরজুড়ে মোতায়েন করা হয় বিপুলসংখ্যক অতিরিক্ত সেনা। জারি করা হয় বিধিনিষেধ। গ্রেপ্তার করা হয় সেখানকার শত শত নেতাকর্মীকে।

সেখানে উন্নয়নের জন্য এ পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে এবং এটা দেশটির ‘সম্পূর্ণ অভ্যন্তরীণ বিষয়’ ভারতের পক্ষ থেকে এমন দাবি করা হলেও পাকিস্তান বলছে, সেখানে কাশ্মিরিদের মানবাধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে। দিল্লির ওই পদক্ষেপের পর এর প্রতিবাদে জাতিসংঘে বৈঠকের আবেদন করে পাকিস্তান। কিন্তু এতে কাজ না হওয়ায় দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কোরেশি চিঠি দেন নিরাপত্তা পরিষদে। পরে চীন নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকের জন্য আহ্বান জানালে তা অনুষ্ঠিত হয়। তবে সেখানে আনুষ্ঠানিক বিবৃতি অস্বীকৃতি জানায় পরিষদের সদস্য রাষ্ট্রগুলো।