• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ১২ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং | ২৭শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১৪ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরী

দুপুর ২:১২

কামারখন্দ অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে লাচ্ছা সেমাই তৈরীর অপরাধে অর্থদন্ড


সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধিঃ সিরাজগঞ্জের কামারখন্দে শালদাহ গ্রামে নোংরা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে লাচ্ছা সেমাই, সাথী ঝাল চানাচুর, পপির রুচি চানাচুর তৈরি করায় মেসার্স পপি ফুড প্রোডাক্টকে  ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

পাশাপাশি ২৫ কেজি পচা সেমাই, চানাচুর ২০ কেজি জব্দ করে ধ্বংস করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। সোমবার বেলা ১২টার দিকে  অভিযান চালিয়ে লাচ্ছা সেমাই, চানাচুর, পচা বাদাম, পোড়া তৈল ও বিভিন্ন ধরনের মানবদেহের ক্ষতিকর রং  জব্দ করে ওই ফ্যাক্টরিকে জরিমানা করেন।

কামারখন্দ উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শিফা নুসরাত ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের পেশকার সেখ মোঃ মনজুর আলম বলেন, কয়েকদিন আগে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম কয়েকটি গণমাধ্যমে “কামারখন্দে অস্বাস্থ্যকর ও নোংরা পরিবেশে লাচ্ছা সেমাই তৈরী” প্রকাশিত সংবাদ দেখে  সিরাজগঞ্জ কামারখন্দের শালদাহ গ্রামে  ভ্রাম্যমাণ আদালত পাঠান ও সেই অনুযায়ী ভ্রাম্যমাণ  আদালতের অভিযান পরিচালিত হয়। এ সময় নোংরা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে লাচ্ছা সেমাই উৎপাদন দেখতে পান ভ্রাম্যমাণ  আদালত।নোংরা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে লাচ্ছা সেমাই তৈরি, পরিবেশের ছাড়পত্র না থাকা, কর্মচারীদের স্বাস্থ্য সনদ না থাকা, ফায়ার সার্ভিসের ছাড়পত্র না থাকা, কল-কারখানা প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদফতরের সনদপত্র না থাকা ও ট্রেড মার্ক লাইসেন্স না থাকার অপরাধে মেসার্স পপিফুড লাচ্ছা সেমাই ফ্যাক্টরির ম্যানেজার মুকুল হোসেনকে ভোক্তা অধিকার ২০০৯ (৪৩)ধারা অনুযায়ী দিয়ে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। সেই সঙ্গে  পচা লাচ্ছাসেমাই, চানাচুর ,পচা বাদাম, পোড়া তৈল,  আয়োডিনহীন লবণ, মানবদেহে ক্ষতিকর বিভিন্ন ধরনের রং  জব্দ করে জনসম্মুখে ধ্বংস করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

এ ব্যাপার ভ্রাম্যমাণ আদালতের শিফা নুসরাত বলেন,  মের্সাস পপি ফুড প্রোডাক্টস মালিক মোঃ ফেরদৌস রহমানকে না পাওয়ায় ফ্যাক্টারির ম্যানেজারকে ৪০হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে ও এই ধরনের নোংরা পরিবেশে যেন লাচ্ছা সেমাই ও চানাচুর না তৈরির করা হয়।  এছাড়া পরবর্তীতে এই ফ্যাক্টরির বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ পেলে সিলগ্যালা করা হবে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম জানান, গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত সংবাদ দেখে ওই ফ্যাক্টরিতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পাঠাই।