• ঢাকা
  • সোমবার, ২১শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং | ৬ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২১শে সফর, ১৪৪১ হিজরী

সকাল ৯:৩৫

এইচএসসি উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের অভিনন্দন


এবারের উচ্চ মাধ্যমিক ও সমমানের পরীক্ষার পাসের হার বেড়েছে । পাস করেছে ৭৩.৯৩ শতাংশ শিক্ষার্থী। জিপিএ ৫ পেয়েছে মোট ৪৭ হাজার ২৮৬ জন শিক্ষার্থী। গত বছর পাসের হার ছিল ৬৬.৬৪ শতাংশ। জিপিএ ৫ পেয়েছিল ২৯ হাজার ২৬২ জন। এবার পাসের হার বেড়েছে ৭.২৯ শতাংশ। জিপিএ পাওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা বেড়েছে ১৮ হাজার ২৪ জন। তবে এবার এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ৪১টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কোনো শিক্ষার্থী পাস করতে পারেনি।

তবে এবার সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য বিষয় ছিল, এবার প্রশ্ন ফাঁসের কোনো ধরনের অভিযোগ ছাড়াই উচ্চ মাধ্যমিকের সব পরীক্ষা শেষ হয়। ৭৩.৯৩ শতাংশ পাসের হারকে ‘যথেষ্ট গ্রহণযোগ্য ও ভালো’ ফল হিসেবে বর্ণনা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা । তিনি বলেন,  আমাদের শিক্ষার দিকে মনোযোগ দিলে শিক্ষার্থীরা ধীরে ধীরে আরো ভালো রেজাল্ট করতে পারবে। ছেলে-মেয়েরা যাতে পড়ালেখায় মনোযোগী হয়, সে জন্য নেওয়া উদ্যোগের কথাও উল্লেখ করেছেন তিনি। এবার কোনো শিক্ষার্থী যদি একটি বা দুটি বিষয়ে ফেল করে, সেগুলোই আবার দিতে হবে, পুনরায় সব পরীক্ষা দিতে হবে না।

আমাদের দেশের শিক্ষাব্যবস্থাকে ঢেলে সাজানো উচিত। প্রাথমিক পর্যায় যোগ্য করে গড়ে তুলতে পারলে শতভাগ শিক্ষার্থী পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হবে বলে আমরা বিশ্বাস করি। তবে যেসব প্রতিষ্ঠান খারাপ করেছে, সেগুলোর দিকে  নজর  দেওয়া জরুরি। সরকারকে মানসম্পন্ন শিক্ষক নিয়োগ দিতে হবে। আমাদের মনে রাখতে হবে, হবে যোগ্য শিক্ষকের বিকল্প নেই।  শিক্ষার মান নির্ভর করে তাদের উপর ।এবার যারা এইচএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ  হয়েছে তাদেরকে অভিনন্দন জানাই। তাদের উচ্চশিক্ষা গ্রহণের পথ মসৃন ,সুন্দর হোক। যারা পাশকরতে পারেনি তাদের হতাশ হলে চলবে না। আর যাদের ফল আশানুরূপ হয়নি। তাদেরও মনোবল হারালে চলবে না।তাদের পাশে আমাদের দাড়াতে হবে।কারন মনে রাখতে হবে, তাদের এখনো চলার অনেক পথ বাকি। তাদেরকে বোঝাতে হবে,একবার  ফল খারাপ হওয়া মানে জীবন থেমে যাওয়া নয়।