• ঢাকা
  • সোমবার, ১৮ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং | ৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১৯শে রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরী

রাত ৩:০৪

অপ্রতিরোধ্য ভূমিদস্যু ও সন্ত্রাসী আক্তারুজ্জামান


নিজস্ব প্রতিবেদক ঃ ভূমিদস্যু সন্ত্রাসী আক্তারুজ্জামান এর কালো ছোবলে অসহায় রাজধানীর মানিকদি , ভাষানটেক ও মাটিকাটা এলাকার শতাধিক পরিবার। তার পালিত সন্ত্রাসীদের গুম ও খুনের হুমকিতে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন তারা। বার বার প্রশাসনের দারস্থ হয়েও কোনরূপ প্রতিকার পাচ্ছেন না অসহায় পরিবার গুলো। আক্তারুজ্জামান অনলাইন ডেভলপমেন্ট লিঃ নামে একটি নাম সর্বস্ব কোম্পানি বানিয়ে জাল কাগজ পত্র তৈরির মাধ্যমে নিরীহ মানুষের জমি অবৈধ দখল করে নিজ কোম্পানীর নামে সাইন বোর্ড জুলাচ্ছেন। গড়ে তুলেছেন বিশাল সন্ত্রাসী বাহিনী। গুম,খুন ও প্রশাসনের ভয় দেখিয়ে জবর দখল করে চলেছেন এই অপ্রতিরোধ্য মাফিয়া স¤্রাট। সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে রাতের অন্ধকারে অন্যের জমিতে অনলাইন ডেভলপমেন্টের সাইন বোর্ড লাগিয়ে প্রকৃত মালিক কে উচ্ছেদ করছেন।


সরজমিনে প্ররির্দশন করে দেখা যায় মাটি কাটা থেকে কালশি পর্যন্ত রাস্তার দু-পাশে অনলাইন ডেভলপমেন্ট এর সাইন বোর্ড। মাটি কাটা আবাসিক এলাকায় অন্যের জমিতে জোর পূর্বক সাইন বোর্ড লাগিয়ে ফ্ল্যাট ও প্লট বিক্রয়ের নামে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন এই অনলাইন গ্রুপ। অসহায় লোকদের জমি দখলের পাশাপাশি আওয়ামীলীগ নেতা, সেনাবাহিনীর সদস্যদের জমিও দখল করে রাতা রাতি মালিক বনে গেছেন। গিয়াস চৌধুরী, খাজা আব্দুর রহমান, আব্দুর আউয়াল, সুজা উদ্দিন, ওয়ারেন্ট অফিসার, মোঃ ইউনুছ, আইয়ুব আলী, এ্যাড. সাহারা খাতুন ও স্বপ্না আক্তার সহ অসংখ লোকের জমি দখল করেছেন। আইয়ুব আলি জবর দখল ও সন্ত্রাসী কার্যকলাপের প্রতিবাদ করলে আক্তারুজ্জামান তার পালিত সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে অপহরন করে। পরবর্তীতে ৩০০ ফিট থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়। এই অপহরন মামলার প্রদান আসামী অনলাইন গ্রুপের মালিক আক্তারুজ্জামান। ভোক্তভোগি একাধিক ব্যাক্তি জানান অনলাইনের মালিক আমাদের জমি জবর দখল করছে, সন্ত্রাসীদের দিয়ে হুমকি দিচ্ছে। সরকারের প্রভাবশালী এম.পি, মন্ত্রী, র‌্যাব ও ডিজিএফআইর মহাপরিচালক তার বন্ধু বলে পরিচয় দিচ্ছে।

এলাকায় তার একাদিক ক্যাডার বাহিনী রয়েছে। এদের মধ্যে কাইয়ুম হাওলাদার, মুবিন, চঞ্চল, শুভ, আজাদ, জহির, হাবিবুর রহমান হবি, মোফিজ, মোখলেছুর রহমান, ইউসুফ, কাশেম, আজমল দেয়ান ,নূর মোহাম্মদ , জাহাঙ্গি, সুলতান, আজিজ, টিপু , মতিউর রহমান, ম্যাগজিন সেলিম , ফেরদৌস কবিরপল ও হারুন মুখ্য ভূমিকা পালন করছেন। পুরো বাহিনীকে নিয়ন্ত্রন করছেন এস.এম রাকিবুজ্জামান। এদিকে টিপু খাস জমি দখল করে , সাধারন মানুষের কাছে বিক্রি করে থাকে ।
উল্লেখ্য আক্তারুজ্জামান আকাধিক মিথ্যা মামলা দিয়ে জমির প্রকৃত মালিদের হয়রানি করে থাকে এবং রাতের আধারে সন্ত্রাসী দারা হামলা করে থাকে। প্রতিবাদ করলেই মাদক,চাঁদাবাজ,ও দেহব্যবসার মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করেন এবং বাধ্য করেন জমি ছাড়তে ।

খোজ নিয়ে জানা যায় ১১ বছর পূর্বে আক্তারুজ্জামান মাটি কাটা এলাকায় টিউশনি করতেন। ২০০৮ ইং সালে ল্যান্ড ব্যবসায় নামেন। নিজেকে প্রদান মন্ত্রীর পি,এস শিকরের বন্ধু পরিচয় দিয়ে জমি দখল শুরু করেন। এলাকার মাদক ব্যবসায়ী সন্ত্রাসীদের নিয়ে ক্যাডার বাহিনী গড়ে তুলেন। ১১ বছরে হাজার কোটি টাকার মালিক হন। যে বাড়িতে ভাড়া থাকতেন ও টিউশনি করতেন তাদের জমিও রক্ষা পায়নি এই ভূমিদস্যুর হাত থেকে। বর্তমানে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর পিএস, রাষ্ট্রের একটি গোয়েন্দা সংস্থার প্রধান ও সরকারের একটি এলিট ফোর্সের নাম ভাঙ্গিয়ে সাধারন জনগণকে ভয় ভিতি দেখিয়ে জমি দখল সহ সন্ত্রাসী কার্যকলাপ চালিয়ে যাচ্ছেন নির্ভিঘ্নে। বাস্তবে তিনি একজন প্রতারক , সন্ত্রাসী ও ভূমিদস্যু। তার সন্ত্রাসী কার্যকলাপ থেকে মুক্তি পেতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন ভোক্তভূগী পরিবার গুলো।