Natun Kagoj

ঢাকা, বুধবার, ১৭ জানুয়ারি, ২০১৮ | ৪ মাঘ, ১৪২৪ | ২৯ রবিউস-সানি, ১৪৩৯

হাসিনাকে দিনমজুর রইজের উপহার

১৫স্বপন মির্জা: দিন মজুর রইজ পাগলার বহু আকাঙ্খিত আশা পুরণ হয়েছে। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের জাতীয় সম্মেলনে ৮ম বারের মত নির্বাচিত সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও নতুন সাধারন সম্পাদক সড়ক-সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরকে শ্রোদ্ধা এবং শুভেচ্ছা জানিয়ে উপহার দেবার জন্য ৩ মাস আগে কেনা শাড়ি-লুঙ্গী ওবায়দুল কাদেরের হাতে তুলে দিয়েছেন আজীবন বঙ্গবন্ধু ভক্ত সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুর থানার গোপরেখী গ্রামের দলীয় এ কর্মীর।

পারিবারিকভাবে প্রতিনিয়ত নানা অভাব পারি দেয়া এই মানুষটি এক মাস আয়ের জমানো টাকা দিয়ে এলাকার ২টি কারখানা থেকে প্রধানমন্ত্রীর জন্য ১টি মুল্যবান শাড়ি ও ওবায়দুল কাদেরের জন্য ১টি লুঙ্গী কিনে ৩ মাস স্বযন্ত্রে আগলে রেখেছিলেন। শুক্রবার উত্তরবঙ্গে রাজনৈতিক সফর উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম পাড় কড্ডার মোড়ে এক পথ সভায় অংশগ্রহন কালে তা দলের সাধারন সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের হাতে তুলে দিতে পেরে সমাজ সেবায় অসমান্য ভুমিকা পালনকারী রইজ পাগলা খুশীতে আত্মহারা।

জানা যায়, গোপরেখী গ্রামের দিন মজুর ও আওয়ামীলীগের জন্য নিবেদিত রইজ উদ্দিন পাগলা সমাজ সেবায় অসাধারন ভুমিকা পালন করায় এনায়েতপুর, বেলকুচি ও চৌহালী থানা জুড়ে তার বিশেষ খ্যাতি রয়েছে। তাঁত শ্রমজীবি তার পরিবারের ৮ সদস্যের কোন রকমে চলে সংসার। বাড়ির ছেলে, মেয়ে, পুত্রবধু, স্ত্রী সবাই তাঁত বুনানো ও চড়কায় সুতা কাটার উপর চালিয়ে থাকেন অভাবের সংসার। দুবেলা দু মুঠো ডাল-ভাত খেয়েই চলে সমাজ সেবক পরিবারটি। রইজ উদ্দিন মাটি কাটা শ্রমিক ও বাবুর্চির কাজ করে থাকেন। তবে ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি রইজ পাগলার মুল কাজ আওয়ামীলীগ ও সমাজ সেবাকে ঘিরে। দলের যেকোন কাজের জন্য নিবেদিত এই মানুষটি এলাকার রাস্তা-ঘাট সংস্কার কাজ পরিবারের সবাইকে নিয়ে বিনে পয়সায় করে থাকেন।

এজন্য ৫৫ বছর বয়স্ক এই ব্যক্তিকে সবাই আদর করে ডাকে রইজ পাগলা নামে। গত ২০০৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সময় এলাকার প্রার্থীকে বিজয়ী করতে নিজের চায়ের দোকান বিক্রি করে প্রচারনা চালিয়েছেন। গত ২০১৫ সালের নভেম্বরে বাড়ির পাশের হুরাসাগর খালে গরু বিক্রি ও এনজিও থেকে ঋন করে ৬০ হাজার টাকা দিয়ে মানুষের যাতায়াতের জন্য ৯২ হাত বাঁশ-কাঠের দৃষ্টিনন্দন সাঁকো করে দিয়ে জেলা সহ দেশ জুড়ে ব্যাপক আলোচিত হন। তার প্রতি কৃতজ্ঞতায় আবদ্ধ হয়ে স্থানীয় উপজেলা প্রশাসন সেখানে ৩২ লাখ টাকায় একটি সেতু তৈরী করে দিয়েছেন।

বর্তমানে রইজ পাগলা তার কাজের পাশাপাশি বিনে পয়সায় কবর খোড়া, অসহায় মেয়ের বিয়েতে সহযোগীতা, দরিদ্রদের বাড়িতে আচার অনুষ্ঠানে রান্না সহ সামাজিক সকল কাজে সহায়তা করে থাকেন। এজন্য তার প্রতি কৃতজ্ঞ হয়ে এলাকার সুধি সমাজ নানা আচার অনুষ্ঠানে সম্মান করে রইজ পাগলাকে প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথি করে সম্মান দিয়ে থাকেন। হাঠৎ গত অক্টোবরে তার প্রাণপ্রিয় রাজনৈতিক দল আওয়ামীলীগের জাতীয় সম্মেলন হবে বলে খবর পান। এতে তার দৃঢ় বিশ্বাস ছিল বর্তমান সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই আগামীতে সভাপতি হ”েছন। আর সাধারন সম্পাদক যেই হোক না কেন তাদের দুজনকেই এলাকার উৎপাদিত সবার পছন্দের মুল্যবান শাড়ী-লুঙ্গী উপহার দেবেন। তখন থেকে একশো/দুইশো করে টাকা গোছাতে থাকেন।

সম্মেলনের দিন পর্যন্ত যা হয়ে যায় ৪ হাজার টাকায়। কাউকে না জানিয়েই খামারগ্রামের আনোয়ার হোসেন খানের বাড়ি গিয়ে পাইকারী দরে ৮শ টাকায় কিনে আনেন লুঙ্গী। এরপর এলাকার সবচেয়ে বিখ্যাত শাড়ি প্রস্তুতকারী একই গ্রামের আফজাল হোসেন লাভলুর বাড়িতে যান শাড়ি কিনতে। সেখানে পাইকারী হাজার টাকার নিচে শাড়ি মেলা ভার। উপরে রয়েছে ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত। আধুনিক নতুন নকশার সবচেয়ে ভাল মানের শাড়ীটিই পছন্দ করে বসেন রইজ পাগলা। কিন্তু এতো দামের শাড়ি দিয়ে কি করবেন এমন প্রশ্ন তাঁত মালিক আফজাল হোসেন লাভলু করলে, প্রথমে জানাতে চাননি তিনি। পরে অনুরোধ করলে তিনি জানান, তার প্রাণের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আবারো দলের সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন বলে তাকে দেবার জন্য শাড়িটি কিনতে এসেছেন। একথা শুনে ঐ তাঁত মালিক হতভাগ।

হাসিনার প্রতি তার অঘাত ভালবাশার জন্য সম্মান জানিয়ে তখন ২ হাজার টাকা না নিয়ে ৩ হাজার টাকায় শাড়িটি তুলে দেন। এ ব্যাপারে জাতীয় কারুশিল্পী পুরস্কার প্রাপ্ত তাঁত মালিক আফজাল হোসেন লাভলু জানান, এমন বিরল ভালবাশার বিষয়টি রইজ পাগলার কাছে শুনে আসলেই অবাক হয়েছি। আমি শাড়ি দিয়ে টাকা নিতে চাইনি। বিনামুল্যে দিতে চেয়ে ছিলাম। কিন্তু তিনি নেননি। বরং বলেছেন, আমার কষ্টে জমানো টাকায় যদি শাড়িটি শেখ হাসিনাকে উপহার দিতে না পারি তাহলে আমি আত্বতৃপ্ত হবোনা। তাই টাকা নিতেই হবে। তিনি জানান, আসলে এমন ভালবাশা, কর্মীদের আওয়ামীলীগের প্রতি আছে বলেই হাসিনার নেতৃত্বে দেশ ও দল এগিয়ে যাচ্ছে।

শুক্রবার দলের নবনির্বাচিত সাধারন সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সিরাজগঞ্জে আসবে বলে ৩ মাস আগে কেনা শাড়ি-লুঙ্গী নিয়ে
কাক ডাকা ভোরে কড্ডার মোড়ের পথসভায় হাজির হন রইজ পাগলা। প্রধানমন্ত্রী ও দলের সাধারন সম্পাদককে দেবার জন্য শাড়ি লুঙ্গী নিয়ে এসেছেন বিষয়টি জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল লতিফ বিশ্বাস ও সাধারন সম্পাদক হাবীবে মিল্লাত মুন্নাকে খুলে বললে তারা হতভাগ হন। এসময় তারা রইজ পাগলাকে আশ্বস্ত করেন এবং বিষয়টি নিয়ে দলের কেন্দ্রীয় সাধারন সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে অবহিত করলে তিনি রাজি হন। তখন অনুষ্ঠান শেষে রইজ পাগলাকে দেখা করতে বলেন। এরপর অনুষ্ঠান শেষে সোয়া ১১টার দিকে দেখা করে রইজ পাগলা তার কাঙ্খিত উপহার গুলো তুলে দেন। এসময় করমর্দন করে রইজ পাগলাকে ধন্যবাদ দেন ওবায়দুল কাদের। তখন স্থানীয় সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক হাবীবে মিল্লাত মুন্না উপস্থিত ছিলেন।

 


নতুন কাগজ | news editor

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

Loading Facebook Comments ...
 বিজ্ঞাপন