সাকিবকে ম্যাচসেরা হতে আর কী করতে হবে?

14

স্পোর্টস ডেস্ক: সাকিব আল হাসানের একটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে প্রতিপক্ষকে ১৪০ রানের নিচে আটক রাখতে বল হাতে অবদান ৪-০-২১-২। একটি মাত্র বাউন্ডারি দিয়েছেন, ২৪ বলের এই স্পেলে ডট ১১টি। এখন প্রশ্ন হচ্ছে, তাকে ম্যাচসেরা হতে আর কী করতে হবে?

কলকাতার বিপক্ষে কালকের ম্যাচে ঠিক একই বোলিং ফিগার তার সতীর্থ বিলি স্ট্যানলেকের। তবে ১৫টি ডট বল হওয়ায় অস্ট্রেলিয়ান এই পেসার কিছুটা এগিয়ে থেকেছেন।

কিন্তু বল হাতে পারফম্যান্সটা তো দেখতে হবে। দলের শেষ ব্যাটসম্যান হওয়ায় তার অবশ্য কিছু করার ছিল না।

এখানে বলা ভালো, চতুর্থ উইকেটে কেন উইলিয়ামসন-সাকিবের জুটি ম্যাচটা অতদূর গড়াতে দেয়নি। ১৩৯ রান তাড়া করতে মাঠে নেমে ২৩ রানের মধ্যে ৩ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়েছিল সানরাইজার্স হায়দরাবাদ।

সেখান থেকে চতুর্থ উইকেটে ৫৯ রানের মূল্যবান জুটি গড়ে দলকে টেনে তোলেন সাকিব-উইলিয়ামসন।

হায়দরাবাদের ৫ উইকেটের ওই জয়ে সাকিবের অবদান ২১ বলে ২৭ রান। যেটি দলের হয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ।

সানরাইজার্সের ৫ উইকেটের ওই জয়ে সাকিবের অবদান দাঁড়াচ্ছে বল হাতে ২১ রানে ২ উইকেট ও ব্যাট হাতে ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দেয়া ২৭ রানের ইনিংস। একজন অলরাউন্ডার হিসেবে এটিকে তার নিখাদ নৈপুণ্য না বলে উপায় নেই।

ম্যাচের অ্যাডজুকেটররা এতেও সন্তুষ্ট হতে পারেননি। তাদের বিচারে ম্যাচসেরা স্ট্যানলেক।

অথচ এই ম্যাচের প্রতিবেদনে ক্রিকইনফোর শিরোনাম ছিল- সাবেক নাইট রাইডার সাকিবের নেতৃত্বে কলকাতায় সানরাইজার্সের প্রথম জয়।