Natun Kagoj

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং | ৬ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | ২৮শে জিলহজ্জ, ১৪৩৮ হিজরী

বিদায় নায়করাজ রাজ্জাক

আপডেট: ২২ আগ ২০১৭ | ১৯:২৪

নতুনকাগজ প্রতিবেদক : সকালবেলা ঢাকার আকাশে গুটি গুটি বৃষ্টি, সারাদেশে প্রিয় নায়কের প্রান বিয়োগের সকল ভক্তদের মাঝে শোকের ছায়া নেমে আসে। আকাশের বুকফেটে কান্নার দৃশ্য অবতারিত হয়। সময় সকাল ১০টা। বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশন (এফডিসি) সামনে সাধারন মানুষের উপচেপড়া ভিড়, কখন প্রিয় নায়কের কফিন আসবে আর ভক্তরা শেষ বারের মত দেখতে পাবেন প্রিয় নায়ক কালজয়ী কিংবদন্তী অভিনেতা নায়করাজ রাজ্জাককে। এফডিসির ভিতরে মহানায়কের অন্তিমযাত্রা সাক্ষীহতে অপেক্ষা করছে অনেকেই।

কিংবদন্তি এই অভিনেতাকে শেষবারের মতো বিদায় জানাতে বাংলা চলচ্চিত্রের প্রাণকেন্দ্রে হাজির হয়েছেন শিল্পী-কলাকুশলী ও ভক্তরা। মঙ্গলবার বেলা সোয়া ১১টার দিকে তার মরদেহ এফডিসিতে নেওয়া হয়ে। বেলা পৌনে ১২টার দিকে অনুষ্ঠিত হয় প্রথম জানাজা। এর আগে মরদেহে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান তখ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুসহ চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ। তৈরি হয় আবেগঘন পরিবেশ ।

এ সময় তথ্যমন্ত্রী বলেন, রাজ্জাকের মৃত্যুতে বাংলা চলচ্চিত্র অভিভাবক হারাল। তার কর্মময় জীবন নতুনদের জন্য শিক্ষণীয় হয়ে থাকবে।

নায়করাজের লাশবাহী গাড়ির সঙ্গে এফডিসিতে আসেন তার দুই ছেলে বাপ্পারাজ ও সম্রাট। জানাজায় অংশ নেন মিশা সওদাগর, শাকিব খান, ওমর সানি, ফেরদৌস, আমিন খানসহ অনেকে। আরো ছিলেন পরিচালক ও প্রযোজক সমিতির প্রধান ব্যক্তিরা।

এছাড়া শ্রদ্ধা জানান সুচন্দা, ববিতা, নূতন ও চম্পাসহ অনেক তারকা। শেষবারের মতো রাজ্জাককে দেখতে গিয়ে তারা আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন।

প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে নায়ক আলমগীর বলেন, আমি চলচ্চিত্রঙ্গনে আমার খুব কাছের মানুষ, কাছের বড় ভাইকে হারিয়েছি। আমাদের দুজনের স্মৃতির শেষ নেই। আমি উনার আত্নার মাগফেরাত কামনা করি।

কবরী বলেন, রাজ্জাক ভাইয়ের হাত ধরে আমার চলচ্চিত্রে আসা, আমাদের স্মৃতির কথাবলে শেষ করা যাবেনা।

ববিতা কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে বলেন, রাজ্জাক ভাইয়ের প্রথম প্রযোজিত ছবিতে নায়িকা হিসাবে উনি আমাকে নেন, উনি আমার আইকনই নয়, উনি পুরা ইন্ডাস্ট্রিরএকজন সফল অভিনেতা, অভিবাবক । মৃত্যুর আগ পর্যন্ত চলচ্চিত্র উন্নয়নে কাজ করে গেছেন।

শাকিব খান বলেন, উনি শুধু আমার বাবার মত ছিলেন না, আমার অভিবাবক ছিলেন, উনি আমাকে শাষন করতেন আদর করতেন, উনার ভালবাসা না পেলে আজ হয়তো আমি শাকিব খান হতে পারতাম না। উনি নেই এইটা আমি মেনে নিতে পারছিনা।

মিশা সওদাগর বলেন, আমরা আমাদের চলচ্চিত্র পরিবারের অভিবাবক হারিয়েছি।

জায়েদ খান বলেন, আমাদের এই চলচ্চিত্র পরিবারের মাথার ছায়া ও বাবার মত অভিবাবকে হারিয়েছি।

এফডিসি থেকে সর্বস্থরের জনগণের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য শহীদ মিনারে হয় রাজ্জাকের মরদেহ।

সোমবার বিকেলে ঢাকার একটি হাসপাতালে মারা যান। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর। তিনি অনেকদিন ধরে বার্ধক্যজনিত অসুস্থতায় ভুগছিলেন।

শহীদ মিনার থেকে মরদেহ নেওয়া হবে গুলশানের আজাদ মসজিদে। সেখানে দ্বিতীয় জানাজা শেষে দাফন করা হবে বনানী কবরস্থানে।


নতুন কাগজ | সাজেদা হক

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

Loading Facebook Comments ...
 বিজ্ঞাপন