ফাগুন দিনের সাজগোজ

0
24

নতুন কাগজ ডেস্ক: দখিনা হওয়া আর ফুলের গন্ধ জানান দিচ্ছে বসন্ত এসে গেছে । বসন্তের প্রথম দিন পহেলা ফাগুন উদাযাপনের প্রস্তুতি এখন ঘরে ঘরে।

নাগরিক জীবনে ক্ষণিকের জন্য হলেও ফাগুন এনে দেয় প্রশান্তির ছায়া। ফাগুন মানেই রঙের ছড়াছড়ি। ফাগুনকে আপন রঙে সাজাতে ফুলেরা ধারণ করে নানা রঙ। শীতের জীর্ণতা সরিয়ে ফুলে ফুলে সেজে ওঠার আনন্দময় প্রস্তুতি এখন প্রকৃতিজুড়ে। তাই তো ঋতুরাজ বসন্তকে আপন করে নিতে পয়লা ফাল্গুনে বাঙালি সাজে নতুন সাজে। ফাল্গুনে হলুদ, লাল, কমলা রঙের প্রাধান্যই বেশি থাকে। মেয়েরা শাড়ি পরতেই বেশি পছন্দ করে। আর ছেলেরা পাঞ্জাবি। আর যারা শাড়ি পছন্দ করে না তারা সালোয়ার কামিজ পরতে পারেন। পোশাকের সাথে ফুলের প্রাধান্যও থাকে ফাল্গুনে। তাই মেয়েদের সাজে ফুল থাকা চাই।

পয়লা ফাল্গুনে যেহেতু সবাই ফুলের গয়নায় সাজে, তাই মেকআপটা ন্যাচারাল হওয়াই ভালো। চোখে কাজল, কপালে লাল টিপ থাকতে পারে। আইশ্যাডোতে হলুদ-বাদামি আর ঠোঁটে কমলা, লাল গোলাপি রঙের লিপস্টিক বেশ ভালো লাগবে। শাড়ি পরে উৎসবে যোগ দিলে ফুলের গয়নায় ভালো মানাবে। খোঁপা কিংবা বেণীতে সাজাতে পারেন আপনার চুল। খোঁপা সাজাতে পারেন রঙিন জারবেরা, গ্ল্যাডিওলাস কিংবা নানা রঙের চন্দ্রমল্লিকায়। বেণীতে জড়াতে পারেন হালকা হলুদ রঙের গাঁদার মালা। হাতে জড়াতে পারেন ফুলের মালা, কাচের চুড়ি। মাথায়ও পরতে পারেন জিপসি ও জারবেরার তৈরি ফুলের ক্রাউন। গলায়, কানে পরতে পারেন ফুলের গয়না অথবা ইমিটেশন জুয়েলারি। সালোয়ার কামিজ পরলে পনিটেল অথবা চুল খুলে রাখতে পারেন। কানের পাশে গুজতে পারেন একগুচ্ছ জিপসি, জারবেরা ও গ্লাডিওলাস। হাতে জড়াতে পারেন গাঁদা ফুলের মালা। এই তো হয়ে গেলো ফাগুনের সাজ।

বসন্তে শুধু বাসন্তি কিংবা হলুদ-সবুজ রঙের পোশাক পরতে হবে- এমন ধারণা পাল্টে গেছে। পয়লা ফাগুনে আপনি চাইলে পরতে পারেন যে কোনো রঙিন পোশাক। তবে সালোয়ার-কামিজের থেকে শাড়ি পরেই বসন্তকে বরণ করে নিতে বেশি উৎসাহী থাকেন তরুণীরা। শাড়ি পরতে চাইলে এক প্যাঁচেই বেশ মানাবে পহেলা ফাগুনে। অথবা পরতে পারেন নিজস্ব যে কোনো স্টাইলে। ব্লাউজে বিশেষত্ব নিয়ে এসেছে ঘটি হাতার ব্লাউজ বা থ্রি কোয়ার্টার হাতা, গলায় কুচি দিয়েও তৈরি করতে পারেন।

বসন্তের সাজে মেকআপ খুব গাঢ় নয়, হাল্কা করে সাজতে হবে। কারণ দিনের রোদে মেকআপ নষ্ট হয়ে যেতে পারে। মেকআপ নেয়ার আগে মুখমণ্ডলটাকে মেকআপ উপযোগী করে তুলতে ভালোভাবে ক্লিনজিং করে নিন। এবার ময়েশ্চারাইজিং ক্রিম লাগিয়ে নিন। ১০ মিনিট পর ফাউন্ডেশনের সঙ্গে কয়েক ফোঁটা পানি মিশিয়ে মুখমণ্ডলে লাগিয়ে নিন। ফাউন্ডেশন মসৃণভাবে ত্বকে মিশিয়ে নিন। তারপর হাল্কা ফেসপাউডার বুলিয়ে নিন। ত্বকের রঙের সঙ্গে মিলিয়ে শেড নির্বাচন করুন। এবার চোখ দুটিকে সাজিয়ে নিন একটু গাঢ় করে মাসকারা, আইলাইনার, কাজল আর হালকা আইশ্যাডো দিয়ে। অবশেষে লিপস্টিক আর কপালে একটি লাল রঙের বড় টিপ। হাল্কা লিপগ্লস বুলিয়ে নিতে পারেন ঠোঁটে। লিপলাইনার একটু গাঢ় রঙের বেছে নিন।

বসন্ত বরণে যেহেতু সারাটা দিনই বাইরে কাটবে, তাই চুলের দিকটায় একটু বিশেষ নজর রাখতে হবে। যেভাবেই সাজুন না কেন, চুলের সাজটা যেন তার সঙ্গে মানানসই হয়। চুল খোলা রাখতে পছন্দ করেন অনেকেই। এ ক্ষেত্রে এক পাশে ক্লিপ আটকে তার ওপর ফুল গুঁজে দিতে পারেন। অথবা কানের পাশ দিয়ে হাল্কাভাবে গুঁজে দিতে পারেন কয়েকটি ফুল। ফুল বড় হলে একটি, ছোট হলে তিন-চারটি। চাইলে সামনের দিকের কিছুটা চুল ব্যাককোম্ব করে নিতে পারেন। পেছনে চুল আটকানোর জায়গাটিতে আটকে দিতে পারেন পছন্দের ফুলটি। দুই পাশ থেকে চুল পেঁচিয়ে এনেও পুরো চুল খোলা রাখতে পারেন।

এ ক্ষেত্রে দুল ও মেকআপের সঙ্গে মিলিয়ে সঠিক জায়গায় ফুলটিকে আটকে নিন। খোঁপার চারপাশ দিয়ে মালা না পেঁচিয়ে একটু অন্যভাবেও পরতে পারেন। খোঁপার চারপাশ দিয়ে পরপর ছোট ফুল গেঁথে নিন অথবা একটি বড় ফুল খোঁপা ও কানের মধ্যে আটকে নিন। বেণিতেও অন্যভাবে ফুল আটকে তৈরি করতে পারেন ভিন্ন লুক। সামনে দুই পাশ থেকে চুল টুইস্ট করে টেনে পেছনে নিয়ে আটকে নিন ক্লিপ দিয়ে। এবার সাধারণভাবে বেণি করে মাঝে মধ্যে ফুল আটকে নিতে পারেন। সামনের টুইস্ট করা অংশেও ছোট ফুল আটকে নিতে পারেন।

ফাগুন দিনের সাজ আর তাতে ফুল থাকবে না- তাই কী হয়! পয়লা ফাগুনের সাজের মূল আকর্ষণই হল ফুলকে ঘিরে। রঙ মিলিয়ে শাড়ি কিংবা সালোয়ার-কামিজ সবকিছুর সঙ্গেই পরতে পারেন ফুল। পোশাকের রঙের সঙ্গে হুবহু না মিলিয়ে সব রঙের পোশাকের জন্য সাদা ফুল বেছে নিতে পারেন। অথবা লালরাঙা ঠোঁট আর লাল টিপের সঙ্গে মিলিয়ে পরতে পারেন লাল ফুল। পাশ্চাত্য পোশাক অথবা চাইলে শাড়ির সঙ্গে সুতা বা ফিতায় পেঁচিয়ে একপাশ করে গলায় পরতে পারেন ফুল। হাতে ক্লাচ ব্যাগের সঙ্গে খুব ভালো মানিয়ে যাবে সাজটা। সে ক্ষেত্রে চুল বাঁধায় আনুন বৈচিত্র্য। দিনের বেলায় ফুল কম পরুন। বড় হলে একটা ফুলই থাক। ছোট ফুল হলে দুটি বা তিনটি নিন। রাতের সাজে গ্লিটারসহ ফুল বেছে নিন জমকালো কোনো পোশাকের সঙ্গে। যখন বড় ফুল পরবেন, তখন গলা ও কানের গয়নাটা একটু হাল্কা বেছে নিন।

এবার রঙিন ফুলের বর্ণিল সাজে রঙিন হয়ে ওঠার পালা। হলুদ গাঁদা মন কাড়াবেই। কিন্তু অন্য ফুলগুলোও নজর কাড়তে কম যায় না। মেরুন, হলুদ, সাদা, নীল রঙের চন্দ্রমল্লিকা, ক্যালানডুলা ফুলগুলোরও চাহিদা অনেক বেশি। এ ছাড়া হলুদ-লাল রঙের চায়নিজ চেরিও তাল মেলাচ্ছে অন্যদের সঙ্গে। বসন্ত উৎসবে আরও পরতে পারেন গ্ল্যাডিওলাস, রজনীগন্ধা, জারবারা। এ ছাড়া গাঁদা, গোলাপ আর অর্কিড তো থাকছেই।

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে আপনার মন্তব্য লিখুন
অনুগ্রহ করে এখানে আপনার নাম লিখুন