প্রজন্মের চোখে ভালোবাসা

0
10

ফায়জুল ইসলাম জনি: সত্যিই এ এক কঠিন প্রশ্ন, ভালোবাসা কারে কয়? এটি এমন এক মানবিক অনুভূতি যাকে সংজ্ঞা বাঁধা মুশকিল। মোটাদাগে বলতে হলে, বিশেষ কোনো মানুষের প্রতি বিশেষ অনুভূতি, তীব্র আকর্ষণ আর গভীর মমতার অপর নামই ভালোবাসা।

মানব-মানবীর মধ্যেই কেবল ভালোবাসা হবে, এমন কোনো কথা নেই। ভালোবাসা নানা রঙের নানা রকম হতে পারে, যেমন: নিষ্কাম ভালোবাসা, ধর্মীয় ভালোবাসা, আত্মীয়দের প্রতি ভালোবাসা ইত্যাদি। আরো সঠিকভাবে বলতে গেলে, যে কোনো ব্যক্তি বা বস্তুর প্রতি অতিরিক্ত স্নেহ প্রায় সময় খুবই আনন্দময় হতে পারে। এই আনন্দময় অনুভূতিটাই ভালোবাসার প্রকৃত সত্য।

সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ভালোবাসার ধরণ আর প্রকাশ। নতুন প্রজন্মের চোখে ভালোবাসা কী, ভালোবাসা নিয়ে কী ভাবছেন তারা ?এসব বিষয়ে জানতে আমরা কথা বলি আজকের প্রজন্মে কয়েকজন তরুণ-তরুণীর সঙ্গে। আসুন, ভালোবাসা সম্পর্কে তাদের ভাবনা জানা যাক।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ছাত্রী জাহানারা আফরোজের মতে, ভালোবাসা একটি আপেক্ষিক বিষয়। এটি একটি সুক্ষ্ম অনুভূতি যা মানুষকে প্রতিদিন নতুন করে বাঁচার উৎসাহ দেয়। মানুষ নানা কারণে একে অপরকে ভালোবাসে। হয়তো সৌন্দর্য্য, হয়তো স্মার্টনেস, হয়তো মেধা বা কখনো কখনো সাধারণ কথাবলাই ভালো লাগার কারণ হয়ে পড়ে। কিন্তু আজকালকার যুগে এসব কিছুর উপরেও যা প্রয়োজন তা হলো স্বাচ্ছন্দ্য। যখন মানুষ কারো সঙ্গে থাকতে ভালোবাসে, তখনই মানুষ তাকে ভালোবাসে। কোনও প্রয়োজনের তাগিদে একসাথে বসবাস করাটা আসলে কোনও এক সময় জীবনভর যন্ত্রণার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। যে সম্পর্কে নিজের চাওয়া পাওয়া যাকে বোঝাতে হয় না, কোনও আরোপিত ভালোবাসা-বাসি যখন থাকে না, সেটাই ভালোবাসা। স্বাচ্ছন্দ্যের সাথে জীবন শেয়ার করার অপর নাম ভালোবাসা। আর যখন এই একসাথে থাকা অভ্যাসে পরিণত হয় তখনই মানুষ সুখী হয়। এগুলো পরস্পরের সাথে সম্পর্কযুক্ত, সম্পূরক। আর এই অনুভূতিটাকে অনুভব করার জন্য যা প্রয়োজন তা হলো- নিজেকে ভালোবাসা।

সরকারী তিতুমীর কলেজে সমাজকল্যাণ বিভাগের ছাত্র মোনতাসির রহমানের মতে, ভালোবাসার অর্থ অন্যের সবকিছুকে আপন করে নেয়া: মানুষের ইম্পারফেকশনকে সুন্দর দৃষ্টিতে দেখার নামই ভালোবাসা। অন্য আরেকটি মানুষের সব দোষ গুণ মেনে নেয়াই সত্যিকারের ভালোবাসা। তাকে পরিবর্তন করে নিতে চাইলে তা ভালোবাসা নয়।শুধু আকর্ষণই নয়, এতে থাকতে হয় সম্মান, শ্রদ্ধা ও বিশ্বাস: ভালোবাসা জিনিসটি শুধুমাত্র একে অপরের আকর্ষণের মাধ্যমে তৈরি হয় না। এতে থাকতে হয় একেঅপরের প্রতি সম্মান, শ্রদ্ধা ও বিশ্বাস।আজকালের ঠুনকো ভালোবাসার অভিনয়ের কারণে এই সত্যগুলো কেউ মনে রাখে না। ভুলে যায় অনেকেই। সে কারণেই আজকাল ভালোবাসার দাম নেই মোটেই। চোখে পড়ে না সত্যিকারের ভালোবাসা।

ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশের (ইউল্যাব) শিক্ষার্থী মৌরি মেহজাবীন বললেন, ভালোবাসা হলো এমন এক সম্পর্ক যা প্রথম প্রথম বোঝা যায় না। এটি এক শব্দে বলতে হয় অনুভব করার মতো। হঠা‍ৎ করেই মনের কোণে নাড়া দিয়ে উঠে এই টান। প্রাণে বয়ে ‍যায় স্নিগ্ধতার বাতাস। পরিচিত সেই মানুষটির সামনে গেলে কেমন জানি আকুলতা, লজ্জা কাজ করে মনের অন্তরালে। ভালোবাসা গড়ে ওঠার পর থেকে প্রিয় মানুষটির সঙ্গে কাটানো এক একটি মুহূর্ত যেন স্বপ্নীল আকাশের দিকে হাতছানি দেয় আর কানে কানে বলে ‍যায়- তুমি একা নও, কেউ আছে তোমার জন্য এই সুন্দর পৃথিবীতে।

একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরিরত ব্লগার আইরিন সুলতানা বলেন, ভালোবাসা কারে কয়? এর উত্তর পুঁথিগতভাবে লিপিবদ্ধ করা কখনই সম্ভব না। রবি ঠাকুরের গানের সেই বিখ্যাত চরণ, ‘সখী ভালোবাসা কারে কয়’ এর রেশ দেখা যায় অধুনা টুটুলের গানেও। যত বছর বয়সেই লিখুন না কেন, মনের তারুণ্যে সে সময় রবি ঠাকুর খানিকটা বিষ্মিত আবেগ নিয়ে জানাতে অথবা জানতে চেয়েছিলেন, ‘সেকি কেবলি যাতনাময়’ । আর আধুনিক প্রজন্মের টুটুলের গানে শোনা যায়, ‘নদীর জলে ভালবাসা খোঁজার কোনও অর্থ কি হয়’! অর্থ্যাৎ ভালোবাসার মত এত প্রাচীন একটা বিষয় এখনো রহস্যই রয়ে গেল! সম্ভবত এ কারণে হালের ফেসবুক প্রজন্ম সম্পর্কের স্ট্যাটাসে জানান দিচ্ছে ‘It`s complicated’ ।কিন্তু ভালবাসা আসলে জটিল নয়, একে জটিল-কুটিল করার দায়ভার মানুষেরই। ব্যক্তি বিশেষে কেউ বুদ্ধি দিয়ে ভালোবাসে, কেউ যুক্তি-দর্শন দিয়ে, কেউবা নির্জলা আবেগ দিয়ে, কারো জন্য ভালোবাসা ফ্যাশন, কারো জন্য প্যাশন! ভালোবাসার এই কাঠামো ও এর বিপরীতে সম্ভাব্য কমপ্লিকেসি, সেটা man made, মানে মনুষ্য ‍সৃষ্ট। ভালোবাসা নিজের জন্য হোক, প্রেমিক-প্রেমিকার জন্য হোক, পরিবারের জন্য হোক, দেশের জন্য হোক। প্রতিদিনই হোক। দিবসের জন্য ভালবাসা বসে থাকবে না। তবে একটি বিশেষ দিবসে সবাই মিলে ঘোষণা করে ভালোবাসা উদযাপন এমন কিছু মন্দ নয়।

ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির ছাত্র জুলহাস সিদ্দিকী বললেন, আসলে প্রতিটি মানুষ নিজেকেই সবচেয়ে বেশি ভালোবাসে। আর আপনি যদি নিজেকে ভালোবাসতে না পারেন তবে অন্য কেউই আপনাকে ভালোবাসতে পারবেন না। এই সত্যি অনেকেই জানি। কিন্তু মানতে পারি না। ভালোবাসায় স্বার্থপরতা থাকে না: ভালোবাসা সম্পূর্ণ নিঃস্বার্থ একটি ব্যাপার। যখন এতে স্বার্থ জড়িত থাকে তখন তা আর ভালোবাসার পর্যায়ে পড়ে না। সেই সঙ্গে ভালোবাসা কখনো পারফেক্ট হয় না: মানুষ যেমন কখনো পারফেক্ট হতে পারেন না তেমনই ভালোবাসা কখনো পারফেক্ট হবে না। অনেক খুঁত থাকবে এতে। কিন্তু তা মেনে নিয়ে চলার নামই ভালোবাসা ।নিজের স্বত্বাটাকে বদলে অন্য আরেকজনের মতো অভিনয় করে কারো সামনে থাকার নাম ভালোবাসা নয়। ভালোবাসায় কখনো মেকিভাব থাকতে পারে না।

ইডেন কলেজের শিক্ষার্থী ফৌজিয়া করিম অনুর মতে, ভালোবাসা হলো সিগারেটের মত। না থাকলে উশখুশ লাগে, ভরপেটে খেলে ঢেকুর উঠে। বেশি খেলে বুকে ব্যাথা করে। পকেটের ওজনও কমায়। যারা আশেপাশে থেকে পজিটিভ ক্ষতির শিকার হয়, তাদের কাছে হাজারবার ছেড়ে দেবো ভেবেও ছাড়া হয়ে ওঠে না। বাবা-মায়ের অগোচরেই এসব করতে হয়। তবে ভালোবাসার মধ্যে কোনো সংবিধিবদ্ধ সতর্কীকরণ নেই। তবে হ্যা, ভালোবাসা কখনো জোর করে হয় না। ভালোবাসা পুরোপুরি একজন মানুষের একান্ত ব্যাপার।

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে আপনার মন্তব্য লিখুন
অনুগ্রহ করে এখানে আপনার নাম লিখুন