Natun Kagoj

ঢাকা, বুধবার, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং | ৫ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | ২৮শে জিলহজ্জ, ১৪৩৮ হিজরী

নারায়ণগঞ্জ নির্বাচন নিয়ে দু’দলকে ভাবতে হবে

আপডেট: ২৪ ডিসে ২০১৬ | ১৮:০২

15419760_10210822095655813_7506933520830262404_oঅনিল  সেন :  নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের ফলাফল নিয়ে আওয়ামী লীগ-বিএনপি দু’দলকেই ভাবতে হবে। নারায়ণগঞ্জের নির্বাচনকে আওয়ামী লীগ যদি কেবলই অর্জন হিসেবে দেখে, সেটা যেমন ঠিক হবে না। ঠিক তেমনি বিএনপি যদি এ নির্বাচন থেকে কোনো অর্জন খুঁজে না পায় সেটাও তাদের জন্য সমীচীন হবে না। এই নির্বাচন থেকে বাংলাদেশের দুটি বৃহৎ রাজনৈতিক দলের অনেক কিছু শিক্ষনীয় আছে বলে মনে করার যথেষ্ট কারণ আছে।
এই নির্বাচন আওয়ামী লীগের ভবিষ্যৎ রাজনীতির জন্য একটা বড় চ্যালেঞ্জ হবে। তাদের মনে করার কোনো কারণ নেই যে, সুষ্টু নির্বাচন হলেই আগামী নির্বাচনগুলোতে আওয়ামী লীগ জিতে যাবে। নারায়ণগঞ্জ নির্বাচনের হিসেবটা ছিল অনেকটা ভিন্ন। যদি সেখানে সেলিনা হায়াত আইভি প্রার্থী না হয়ে শামীম ওসমান আওয়ামী লীগের প্রার্থী হতো, তাহলে কি হতো ? এ প্রশ্ন যারা নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করেছেন, যারা ভোট দিয়েছেন তাদের। কারণ গত নির্বাচনে আওয়ামীলীগ প্রার্থী শামীম ওসমান আইভীর কাছে গোহারা হেরেছেন।
আইভির ব্যক্তি ইমেজ ও জনপ্রিয়তা অন্য যে কোনো দলের প্রার্থী থেকে তুঙ্গে ছিল। অনেকে তাকে আওয়ামী লীগ প্রার্থী হিসাবে ভোট দেন না, একজন সজ্জন ভালো মানুষ হিসাবে ভোট দেন। এ রকম ক্লিন ইমেজের মানুষ আওয়ামী লীগে ক’জন আছে? তার ওপর ভরসা করে নারায়ণগঞ্জে আওয়ামী লীগ ‘বাজি’ ধরতে পেরেছে এবং সে বাজিতে তারা জিতেছে।
বিএনপি নারায়ণগঞ্জে হেরেছে নিজেদের অনেকগুলো ভুলের কারণে। বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া দলটির অভ্যন্তরীন কোন্দল দুর করতে পারেননি। ভোটের মাঠে অনভিজ্ঞ-অপরিচিত, রাজনীতির মাঠে নিষ্ক্রিয়, নাসিকের অস্থায়ী বাসিন্দাকে প্রার্থী করা ছিল একটি ভুল সিদ্ধান্ত। এ ক্ষেত্রে অদূরদর্শিতার পরিচয় দিয়েছে দলটি। আবার সাংগঠনিকভাবে অগোছালো ও বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির খেসারত দিতে হয়েছে বিএনপি’র প্রার্থী সাখাওয়াত হোসেন খানকে। স্থানীয় প্রভাবশালী নেতাদের মধ্যে যেমন সমন্বয় ছিল না তেমনি তাদের সক্রিয় করতে ব্যর্থ হয়েছে প্রার্থী। প্রচারণা ও গণসংযোগে ছিল ভুল কৌশল। এই নির্বাচনের মধ্যে বিএনপির অনেকগুলো ইতিবাচক দিক আছে। তার মধ্যে প্রধান দিকটি হলো, এই পরাজয়ের মধ্যে দলটি ভুল খুঁজে বের করার সুযোগ পেয়েছে। এবং এ ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে তারা যদি সামনে এগোয় সেটি দলটির জন্য অবশ্যই ভালো হবে।
যদিও অনেকে বলছেন, বিএনপির এ গোহারার পেছনে সম্পূর্ণ দায়ী বিএনপির গণবিরোধী কার্যক্রম। বিএনপি জনগণ কর্তৃক প্রত্যাখ্যাত। তাদের এ কথার যুক্তি উড়িয়ে দেয়া যায় না। কারণ এই তিন মাসের ধ্বংসাত্মক কর্মসূচী শুধু নারায়ণগঞ্জে নয় সামনের প্রত্যেকটি নির্বাচনে আসবে। এবং এ জন্য বিএনপিকে খেষারত দিতে হবে।
আরেকটি নির্বাচন কমিশন গঠনের সময়ে নারায়ণগঞ্জের নির্বাচন সুষ্ঠু করা এবং জয়ের মাধ্যমে দলের জনপ্রিয়তা দেখানোরও তাগিদ ছিল আওয়ামী লীগের মধ্যে। তবে এও তো ঠিক নারায়ণগঞ্জের নির্বাচনের মাধ্যমে সরকার ও আওয়ামী লীগের ওপর সুষ্ঠু নির্বাচনের ধারা বজায় রাখার চাপ বেড়ে গেছে। মানুষের মধ্যে এমন ধারণা তৈরি হয়েছে যে, সরকার চাইলেই সুষ্ঠু নির্বাচন করতে পারে। পাশাপাশি দলীয় রাজনীতিতে কী ধরনের নেতাদের এগিয়ে নিতে হবে আর কাদের দূরে রাখতে হবে সেই শিক্ষাও দিয়েছে এই নির্বাচন। এটিও এক ধরনের চাপ সৃষ্টি করবে আওয়ামী লীগকে।


নতুন কাগজ | অনিল সেন

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

Loading Facebook Comments ...
 বিজ্ঞাপন