Natun Kagoj

ঢাকা, বুধবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৭ | ২৯ অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ | ২৪ রবিউল-আউয়াল, ১৪৩৯

নারায়ণগঞ্জে হত্যা মামলায় ৪ জনের ফাঁসি

আপডেট: ৩০ মার্চ ২০১৭ | ১৮:৫০

নতুন কাগজ প্রতিনিধি: নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলায় ব্যবসায়ী মনির হোসেন হত্যা মামলায় ৪ জনের ফাঁসি ও অপর দুইজনের যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেছেন আদালত।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ও যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত প্রত্যেক আসামিকে ২০ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ডের নির্দেশ দেয়া হয়। টাকা দিতে অপারগ হলে যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত প্রত্যেককে অনাদায়ে আরও ৬ মাস করে কারাভোগের নির্দেশ দেয়া হয়। এছাড়া একই ঘটনায় অপহরণের অভিযোগে প্রত্যেককে ২০১ ধারায় ৭ বছর করে কারাদণ্ড প্রদান করা হয়।

আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ দ্বিতীয় জেলা ও দায়রা জজ কামরুন্নাহারের আদালত এ দণ্ড প্রদান করেন।

ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন, আতাউল হামিদ পরাগ, আলমগীর হোসেন, এরশাদ হোসেন ভুট্টু ও রতন। যাবজ্জীবন দুইজন হলেন, গুলজার হোসেন ও শাহীন মিয়া। তাদের বাড়ি সোনারগাঁও উপজেলার জামপুর ইউনিয়নের মুসারপুর গ্রামে।

নিহতের ভাই কবির হোসেন জানান, তৎকালীন সময়ে আমরা একটি নিখোঁজ ডায়েরি করেছিলাম। পরে সিআইডি ও ডিবির সহযোগিতায় আমরা আসামিদের গ্রেফতার ও বিচারের মুখোমুখি করতে সক্ষম হয়েছি। আদালতের রায়ে আমরা সন্তুষ্ট।

আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর সালাউদ্দিন সুইট জানান, নিহত মনির হোসেন সোনারগাঁ উপজেলার জামপুর ইউনিয়নের মুসারচর গ্রামের আক্কাস আলীর ছেলে। সে সেখানে সবজির দোকানদার ছিল। পাওনা টাকা চাইতে গিয়ে স্থানীয় আতাউল হামিদ পরাগ, আলমগীর হোসেন, এরশাদ হোসেন ভুট্টু মিয়া, রতন, গোলজার হোসেন ও শাহীন মিয়া মিলে ২০০৭ সালের ১৮ জুন মনিরকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে অপহরণ করে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করে। এরপর গুমের জন্য কচুরিপনা দিয়ে লাশ ঢেকে রাখে।

এ ঘটনায় নিহত মনিরের বাবা আক্কাস আলী বাদী হয়ে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করে। পরে তদন্তে ৬ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট দেয় তদন্ত পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ সিআইডি।

মামলায় ১৭ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করে আদালত। আসামিদের মধ্যে রতন, গোলজার ও শাহীন প্রথম থেকেই পলাতক রয়েছে। আজ রায় ঘোষণার সময়ে আতাউল হামিদ পরাগ, আলমগীর হোসেন ও এরশাদ হোসেন ভুট্টু মিয়া উপস্থিত ছিলেন।

 


নতুন কাগজ | রুদ্র মাহমুদ
 বিজ্ঞাপন