দিনটি আজ ভালোবাসার

0
29

আসিফ ইকবাল: ভালোবাসার জন্য আলাদা দিনের প্রয়োজন আছে কি নেই- এ নিয়ে হোক না যতো তর্ক-বিতর্ক, এটা মেনে নিতেই হবে দিনটি আজ ভালোবাসার। পাশ্চাত্য থেকে উড়ে আসা অনেক ধারণার মতো বিশ্ব ভালোবাসা দিবস তার আলাদা আবেদন নিয়েই আমাদের সংস্কৃতিতে জায়গা করে নিয়েছে। এটাকে উপেক্ষার সুযোগ নেই। বরং বিশ্ব ভালোবাসা দিবস বা ভ্যালেনটাইন ডে’কে নিজেদের চেনা বাঙালিয়ানাই পালন করাটাই তো ভালো।কোনো দিন বা উৎসবকে কেন্দ্র করে যদি উপহার আর হৃদ্যতা বিনিময়ের উপলক্ষ তৈরি হয় মন্দ কী!

আগের দিনটি ছিল ফাগুনের অাগুনে রাঙানো বসন্তের প্রথম দিন। সেই নির্যাস নিয়েই ভালোবাসার দিনটিতে মেতে উঠবে সবাই। যুগলদের প্রাণে ভালোবাসা দিবসে যোগ করবে বাড়তি উচ্ছাস। তবে কেবল প্রেমিক-প্রেমিকা বা তরুণ-তরুণী নয়, সব বয়সের মানুষই ভালোবাসার দিনে হৃদ্যতার বার্তা নিয়ে।

প্রতিবছর ১৪ ফেব্রুয়ারি আমেরিকা, ইংল্যান্ড, কানাডাসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে পালিত হয়ে আসছে ভ্যালেন্টাইন ডে বা ভালোবাসা দিবস।চকলেট, পারফিউম, গ্রিটিংস কার্ড, ই-মেইল, মুঠোফোনের এসএমএস-এমএমএসে প্রেমবার্তা, হীরার আংটি, প্রিয় পোশাক, জড়াজড়ি করা খেলনা মার্জার অথবা বই ইত্যাদি শৌখিন উপঢৌকন প্রিয়জনকে উপহার দেয়া হয় ভালোবাসা দিবসে । নীল খামে হালকা লিপস্টিকের দাগ, একটা গোলাপ ফুল, চকলেট, ক্যান্ডি, ছোট্ট চিরকুট আর তাতে দুছত্র গদ্য অথবা পদ্য হয়ে উঠতে পারে উপহারের অনুষঙ্গ।

শুধু তরুণ-তরুণী নয়, নানা বয়সের মানুষের ভালোবাসার বহুমাত্রিক রূপ প্রকাশের আনুষ্ঠানিক দিন আজ। এ ভালোবাসা যেমন মা-বাবার প্রতি সন্তানের, তেমনি মানুষে-মানুষে ভালোবাসাবাসির দিনও এটি। তারুণ্যের অনাবিল আনন্দ আর বিশুদ্ধ উচ্ছাসে সারা বিশ্বের মতো আমাদের দেশের তরুণ-তরুণীদের মাঝেও ভালোবাসা দিবস পালিত হবে। ভালোবাসার উৎসবে মুখরিত হয়ে উঠবে আজ রাজধানী। এ উৎসবের ছোঁয়া লাগবে গ্রাম-বাংলার জনজীবনেও। আমাদের দেশে দিনটিকে ঘিরে বিভিন্ন সংগঠন ও প্রতিষ্ঠান নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। রয়েছে বর্ণাঢ্য র‌্যালি, সূচনা সঙ্গীত, ভালোবাসার স্মৃতিচারণ, কবিতা আবৃত্তি, গান, ভালোবাসার চিঠি পাঠ এবং ভালোবাসার দাবিনামা উপস্থাপনসহ আরো নানা কর্মসূচি। দিবসটি উপলক্ষে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে কনসার্টেরও আয়োজন করা হয়েছে।

ভালোবাসা অবশ্যই প্রতিদিনের,তবুও কেনো ১৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্বজুড়ে পালিত হয় ভালবাসা দিবস বা ভ্যালেনটাইন ডে? সেন্ট ভ্যালেন্টাইনের নাম অনুসারে এ দিনের নামকরণ। এ দিনের পেছনে লুকিয়ে আছে খ্রিস্টান এবং রোমান ঐতিহ্য। ইতিহাসে কয়েকজন সেন্ট ভ্যালেন্টাইনের নাম পাওয়া যায়। এই তিনজনের প্রত্যেককেই হত্যা করা হয়।

প্রচলিত ধারণা হলো, সেন্ট ভ্যালেন্টাইন তৃতীয় শতাব্দীতে রোমে বাস করতেন। তখনকার রোমান সম্রাট ক্লডিয়াস-২ বিশ্বাস করতেন, বিবাহিত পুরুষরা ভালো যোদ্ধা হয় না। তিনি ফরমান জারি করেন, যুবকরা বিয়ে করতে পারবে না। সেন্ট ভ্যালেন্টাইন এই অন্যায় মেনে নিতে পারেনি। তিনি সম্রাটের ফরমান অগ্রাহ্য করে গোপনে যুবক-যুবতীর বিয়ে দিতে থাকেন। সম্রাট তা জানতে পেরে সেন্ট ভ্যালেন্টাইনকে মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত করেন।

আরেক গল্পে পাওয়া যায়, সেন্ট ভ্যালেন্টাইন রোমান সম্রাটের অত্যাচার, নিগ্রহের থেকে খ্রিস্টানদের পালাতে সাহায্য করতেন এবং সে কারণেই মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত হন। কথিত আছে, জেলে থাকতে সেন্ট ভ্যালেন্টাইন তার জেলরক্ষকের কন্যার প্রেমে পড়েন এবং তিনি নিজে তার প্রেমিকাকে ভালোবাসার শুভেচ্ছা ‘ভ্যালেন্টাইন’-এর উপহার পাঠান। মারা যাওয়ার আগে তিনি তার প্রেমিকাকে চিঠি লিখে যান যার শেষ বাক্য ছিল ‘তোমার ভ্যালেন্টাইনের কাছ থেকে’ বা “From your Valentine,”

সেন্ট ভ্যালেন্টাইনের গল্প কোনটা সত্যি তা নিয়ে দ্বিমত আছে অনেকের। তবে মধ্য যুগ থেকেই সেন্ট ভ্যালেন্টাইন ইংল্যান্ডে এবং ফ্রান্সে প্রবাদ পুরুষ। তিনি ভালোবাসা, প্রেম, বীরত্ব এবং সহমর্মিতার প্রতীক হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছেন।

এদিকে সেন্ট ভ্যালেন্টাইনের মৃত্যুবার্ষিকী উদযাপনের জন্য খ্রিস্টানরা মধ্য ফেব্রুয়ারিতে ‘ভ্যালেন্টাইন’ ভোজের আয়োজন করতেন। ৫ম শতাব্দীতে পোপ গেলাসিয়াস ১৪ ফেব্রুয়ারিকে ‘সেন্ট ভ্যালেন্টাইন দিবস’ হিসেবে ঘোষণা করেন। এ দিনকে ভালোবাসার দিন হিসেবে জনপ্রিয়তা পেতে সময় লেগেছে আরও অনেক বছর।

আমাদের দেশেও এখন ‘ভালবাসা দিবস’ বা ‘ভ্যালেনটাইন ডে’ নানা আয়োজনের মধ্যে দিয়ে পালন করা হয়।এদশের মানুষের সাথে ভালবাসা দিবসের প্রথম পরিচয় করিয়ে দেন যায় যায় দিন পত্রিকার সম্পাদক শফিক রেহমান।১৯৯৩ সালে তিনি প্রথম তার পত্রিকার মাধ্যমে ‘ভ্যালেনটাইন ডে’বা ‘ভালবাসা দিবস’এর প্রচার ছড়িয়ে দেন।এরপর ধীরে ধীরে এই দিবসের গ্রহনযোগ্যতা বাড়তেই থাকে। আমাদের দেশেও এখন এই দিবসকে কেন্দ্র করে মানুষ তার প্রিয়জনকে উপহার দেয়।ভালবাসার মানুষের সান্নিধ্যে আসে শত বাধা উপেক্ষা করে। প্রযুক্তির কল্যানে এই দিবসে সুপরিচিত এখন সব শ্রেণীর মানুষের মধ্যেই।

আমরা মানুষ।মানুষ হিসাবে আমরা সব ভালো কে ভালবাসি বলে ভালবাসার মধ্যেই থাকি। প্রতিদিনই হোক ভালবাসার দিন, একটি বিশেষ দিনে সেই ভালোবাসার করি প্রকাশ। আমাদের প্রাণ ভালো থাকুক ভালোবাসা।

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে আপনার মন্তব্য লিখুন
অনুগ্রহ করে এখানে আপনার নাম লিখুন