Natun Kagoj

ঢাকা, বুধবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৭ | ২৯ অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ | ২৪ রবিউল-আউয়াল, ১৪৩৯

থাইরয়েড ক্যান্সারের নানা উপসর্গ

আপডেট: ৩০ আগ ২০১৭ | ১৯:৩৮

লাইফস্টাইল ডেস্ক: শরীরের মধ্যে ধীরে ধীরে বড় হয়ে ওঠা থাইরয়েড ক্যানসার সাধারণত হঠাৎ করেই ধরা পড়ে। অন্য কোন রোগে আক্রান্ত হয়ে আল্ট্রাসাউন্ড, সিটি স্ক্যান বা এমআরআই করলে ডাক্তাররা থাইরয়েড ক্যানসারের সন্ধান পান।

আপনার মধ্যে যদি নিচের উপসর্গগুলো দেখা দেয় তাহলে অবিলম্বে ডাক্তারের শরণাপন্ন হোন।

গলায় গুটি বা স্ফীতি: গলারে উপর কোন গুটি বা স্ফীতি আছে কিনা লক্ষ্য করুন।  ঝুঁকিপূর্ণ বড় গুটি চেনার উপায় হল গলাধঃকরণের সময় এটি উপরে-নিচে উঠানামা করবে, কিন্তু বেশিরভাগ ক্ষেত্রে অন্যান্য গুটি তা করে না।

কর্কশ কণ্ঠস্বর: রিকারেন্ট ল্যারিনজিয়্যাল নার্ভ বা পুনরাবৃত্ত বাকযন্ত্র স্নায়ু যা ভোকাল কর্ড বা স্বরতন্ত্রী খোলা ও বন্ধ করার পেশিকে নিয়ন্ত্রণ করে তা ডানে থাইরয়েডের পেছনে অবস্থিত থাকে। খুব কম ক্ষেত্রে কোনো গুটি (বিশেষ করে ক্যানসারযুক্ত) থাইরয়েডের বাইরে প্রসারিত হতে পারে এবং রিকারেন্ট ল্যারিনজিয়্যাল নার্ভকে ক্ষতিগ্রস্ত করে আপনার ভয়েস বক্স বা ল্যারিনক্স বা স্বরযন্ত্রকে প্রভাবিত করতে পারে। অধিকাংশ রোগীরা ভয়েস বক্সের ওপর এ প্রভাবকে কর্কশতা হিসেবে বিবরণ দেয়। আপনার ল্যারিনজাইটিস(কণ্ঠনালীর প্রদাহ) যদি ঠান্ডা থেকে হয়ে থাকে তাহলে তাড়াতাড়ি স্বাভাবিক কণ্ঠস্বর ফিরে পেতে সমাধান খুঁজুন।

দীর্ঘস্থায়ী কাশি: থাইরয়েড ক্যানসারে আক্রান্ত অল্প সংখ্যক লোকের মধ্যে রহস্যময় কাশির বৃদ্ধি হয়ে থাকে যা সাধারণত কনজেশনের সঙ্গে সম্পর্কিত অন্য কোনো উপসর্গের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত নয়।

গিলতে বা গ্রাসে অসুবিধা: গুটি বা স্ফীতি যথেষ্ট বড় হয়ে গেলে কোনো কিছু গিলতে বা গ্রাসে কষ্ট বা সমস্যা হবে এবং এ অবস্থা নির্দেশ করবে যে ক্যানসার মারাত্মক রূপ নিয়েছে এবং খুব ক্ষতিকর পর্যায়ে চলে এসেছে।

শ্বাসে সমস্যা: আপনি কোনো কিছু না গিললে বা না খেলে বা কথা না বললেও থাইরয়েড ক্যানসারের কারণে আপনার শ্বাসকষ্ট হতে পারে।


নতুন কাগজ | রুদ্র মাহমুদ

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

Loading Facebook Comments ...
 বিজ্ঞাপন