তারল্য বাড়ানোর নামে উল্টোপথে হাঁটছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক

0
13

নিজস্ব প্রতিবেদক: বেসরকারি ব্যাংকের আগ্রাসী ব্যাংকিংয়ের লাগাম টানতে যে মুদ্রানীতি ঘোষণা করা হয়েছিল এর আগে, তারল্য বাড়ানোর নামে এখন উল্টো পথে যাত্রা করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।তবে এসব পদক্ষেপ ব্যাংক খাতের অস্থিতিশীলতা দূর করার বদলে উল্টো অরাজকতা বৃদ্ধি করবে বলে সরকারকে সতর্ক করেছেন সাউথ এশিয়ান নেটওয়ার্ক অন ইকোনমিক মডেলিংয়ের (সানেম) নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক সেলিম রায়হান।

২৯ জানুয়ারি ঘোষণা করা হয় ২০১৭-১৮ অর্থবছরের দ্বিতীয়ার্ধের মুদ্রানীতি ২৯ জানুয়ারি ঘোষণা করা হয় ২০১৭-১৮ অর্থবছরের দ্বিতীয়ার্ধের মুদ্রানীতি ফারমার্স ব্যাংকের মত কিছু বেসরকারি ব্যাংক আগ্রাসী ব্যাংকিং করে নির্ধারিত সীমার চেয়ে বেশি হারে ঋণ দেওয়ায় আর্থিক খাতে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির আশঙ্কায় গত জানুয়ারিতে ঘোষিত মুদ্রানীতিতে ঋণে লাগাম টানার চেষ্টা করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। সাধারণ ব্যাংকের ঋণ-আমানত অনুপাত (এডিআর) ৮৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৮৩ দশমিক ৫ শতাংশ এবং ইসলামী ব্যাংকের ক্ষেত্রে ৯০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৮৯ শতাংশ করা হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর সালেহউদ্দিন আহমেদ বলছেন, ‘ব্যাংক মালিকদের চাপে’ নগদ-জমার বাধ্যবাধকতা (সিআরআর) শিথিল করার পাশাপাশি রেপোর সুদহার কমানোর যে সিদ্ধান্ত কেন্দ্রীয় ব্যাংক দিয়েছে, তা তাদের মুদ্রানীতির সঙ্গেই সাংঘর্ষিক। বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র দেবাশীষ চক্রবর্তী অবশ্য চাপের কথা অস্বীকার করেছেন। তার দাবি, সরকারের জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য অর্জনে সহায়ক হিসেবেই এসব পদক্ষেপ কেন্দ্রীয় ব্যাংক নিয়েছে। সরকার এমন এক সময়ে এই পদক্ষেপ নিয়েছে, যখন শত শত কোটি টাকা অনিয়মের কারণে মাত্র চার বছর আগে রাজনৈতিক বিবেচনায় প্রতিষ্ঠিত ফারমার্স ব্যাংককে ধুঁকতে হচ্ছে। ব্যাংকের তারল্য সঙ্কটের মূল কারণ ভোটের আগে অর্থ পাচার কি না, সে প্রশ্নও ইতোমধ্যে উঠেছে।

রোববার রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে বেসরকারি ব্যাংক উদ্যোক্তা-মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকসের (বিএবি) প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক বসেই অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত ও গভর্নর ফজলে কবির যেভাবে সিআরআর ও রেপো হার কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, আর্থিক খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা ওইভাবে তা করতে পারে কি না, তা নিয়েও গণমাধ্যমে প্রশ্ন তোলা হচ্ছে।

গণভবনে মঙ্গলবার ব্যাংক মালিকদের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা; ওই অনুষ্ঠানে আগেই কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রজ্ঞাপন হয় গণভবনে মঙ্গলবার ব্যাংক মালিকদের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা; ওই অনুষ্ঠানে আগেই কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রজ্ঞাপন হয় মঙ্গলবারই প্রজ্ঞাপন জারি করে বাংলাদেশ ব্যাংক জানায়, ব্যাংকগুলোর আমানতের বিপরীতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকে নগদ জমার বাধ্যবাধকতা ১ শতাংশ পয়েন্ট কমিয়ে দেওয়া হয়েছে, যা ১৫ এপ্রিল থেকে কার্যকর হবে।
এতদিন সব ব্যাংককে তাদের গ্রাহকদের আমানত হিসেবে পাওয়া অর্থের সাড়ে ৬ শতাংশ কেন্দ্রীয় ব্যাংকে বাধ্যতামূলকভাবে জমা (সিআরআর) রাখতে হত। নির্দিষ্ট সময় পরপর জমার পরিমাণ হিসাব করা হত; নগদ জমার পরিমাণ কম হলে দিতে হত জরিমানা। এখন ওই হার কমিয়ে আনা হয়েছে সাড়ে ৫ শতাংশে।

ব্যাংকগুলো যখন কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে ধার করে, তখন তার সুদহার ঠিক হয় রেপোর মাধ্যমে। ব্যাংকগুলো যাতে কম খরচে ধার পায়, সেজন্য রেপোর হার কমিয়ে আনা হয়েছে ৭৫ বেসিস পয়েন্ট। কেন্দ্রীয় ব্যাংক সিআরআরকে ব্যবহার করে ব্যাংকের আমানতকারীদের রক্ষাকবচ হিসেবে। সেই সঙ্গে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণেও কেন্দ্রীয় ব্যাংক এই পলিসি টুলস ব্যবহার করে। এ উদ্দেশ্যেই ২০১৪ সালে বর্তমান সরকার টানা দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আসার পর সিআরআর ৬ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে সাড়ে ৬ শতাংশ করা হয়।

ফারমার্স ব্যাংক নিয়ে জটিলতার অবসান হওয়ার আগেই সরকারের এমন সিদ্ধন্ত বিস্মিত করেছে অর্থনীতির বিশ্লেষকদের।সরকারের জলবায়ু ট্রাস্ট ফান্ডের প্রায় ৫০৮ কোটি টাকা আমানত হিসেবে রাখা হয়েছিল ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য মহীউদ্দীন খান আলমগীরের মালিকানাধীন ফারমার্স ব্যাংকে। অনিয়মের মাধ্যমে ঋণ দিয়ে তা আদায় করতে না পারায় ওই ব্যাংক এখন গ্রাহকের অর্থ ফেরত দিতে পারছে না। ফলে পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের জলবায়ু তহবিলের আমানতের টাকাও আটকে গেছে।