Natun Kagoj

ঢাকা, সোমবার, ২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | ৪ঠা মুহাররম, ১৪৩৯ হিজরী

অভিনন্দন শেখ হাসিনা এবং ওবায়দুল কাদেরকে

আপডেট: ২৩ অক্টো ২০১৬ | ২০:১০

mdমো. সাহেদ :  বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দুই দিনব্যাপী ২০তম জাতীয় সম্মেলন শেষে  সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছে।  রোববার বিকেলে কাউন্সিলরদের বিপুল সমর্থন নিয়ে ফের সভাপতি হয়েছেন  শেখ  হাসিনা আর সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন ওবায়দুল কাদের।

আমি অভিনন্দন জানাই কাউন্সিলরদের। তারা ঠিক সময়ে সঠিক  সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। অভিনন্দন জানাই আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে। তিনি একটি যুগপোযুগী কমিটি দেশবাসীকে উপহার দিয়েছেন। বাংলাদেশের  সামনে যে রাজনীতি অপেক্ষা করছে  তাতে বর্তমান কমিটি  একটি  গুরুত্বপূর্ণ  ভুমিকা পালন করতে সক্ষম হবে আমি ব্যক্তিগত ভাবে মনেকরি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এতো দিন ধরে   যে চমকের কথা বলে আসছিলেন তার অবসান হয়েছে আজ।সমস্ত জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে  আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক পদে একটি চমক দেখিয়েছেন। তবে  চমক শুধু সাধারন সম্পাদক পদেই নয় , দলের সর্বেোচ্চ নীতিনির্ধারনী ফোরাম ‘সভাপতিমন্ডলী’ তে ব্যাপক পরিবর্তন এনেছেন। এই চমকের মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগ  আরো শক্তিশালী হবে তাতে কোনো সন্দেহ নেই। আমরা লক্ষ্য করেছি,   প্রস্তাবে  শেখ হাসিনা্  এবং  ওবায়দুল কাদরের বিকল্প কোনো নাম ছিল না। থাকলে হয়তো অন্য রকম হতে পারতো। অবশ্য বাংলাদেশের রাজনৈতিক ব্যবস্থা এবং দর্শনে তা হবার সুযোগ নেই।

শেখ হাসিনার রাজনৈতিক প্রজ্ঞা এবং  ত্যাগে তার  সমকক্ষ কেউ নেই। সেই জন্যেই কিন্তু   ১৯৮১ সালে শেখ হাসিনা দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে এ পর্যন্ত কেউ সভাপতি পদে তার সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেননি। এবারও কেউ করেননি। ফলে অষ্টমবারের মতো বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হলেন বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বিদেশে থাকাকালে ১৯৮১ সালের সম্মেলনে শেখ হাসিনা প্রথমবারের মতো দলের সভাপতি নির্বাচিত হন। এরপর ১৯৮৭, ১৯৯২, ১৯৯৭, ২০০২, ২০০৯ ও ২০১২ সালে তিনি সভাপতি নির্বাচিত হয়ে আসছেন। এর মধ্য দিয়ে প্রমানীত হলো যে, আওয়ামীলীগে এখন পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনপ্রিয়তা আকাশচুম্ভি।

ওবায়দুল কাদের প্রথমবারের মতো দলের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হলেন। ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ওবায়দুল কাদের দীর্ঘদিন ধরে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন। তিনি ২০০২ সালের সম্মেলনে দলের ১নম্বর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০০৯ ও ২০১২ সালে সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য নির্বাচিত হন। নোয়াখালী অঞ্চল থেকে নির্বাচিত এই সংসদ সদস্য বর্তমানে সরকারের সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে আছেন। সংগ্রামী ছাত্র নেতা  হিসেবে দলে  যেমন তার সুনাম আছে, তেমনি  সুনাম আছে সঠিক সময়ে সিদ্ধান্ত নেয়ার পারদর্শি তার।

নবনির্বাচিত আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং নবনির্বাচিত সাধারন সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে  বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ আরো  শক্তিশালী হবে-এ প্রত্যাশা থাকলো।

 


নতুন কাগজ | অনিল সেন

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

Loading Facebook Comments ...
 বিজ্ঞাপন